Showing posts with label জীবনযাত্রা. Show all posts
Showing posts with label জীবনযাত্রা. Show all posts

Wednesday, January 2, 2019

ডিপফেক টেকনোলজি : মিথ্যাকে সত্য বানিয়ে দেওয়া এক অভিশপ্ত প্রযুক্তি।

একটি দৃশ্য কল্পনা করুন। মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট হুট করে একটি সংবাদ সম্মেলন ডেকে বসলেন। সেখানে তিনি কৃষ্ণাঙ্গদের কটাক্ষ করে খুবই খারাপ একটা কথা বললেন। টিভি ও ইন্টারনেটের মাধ্যমে দ্রুত তা বিশ্বব্যাপী ছড়িয়ে পড়লো। এমন বর্ণবাদী মন্তব্যের জন্য সমগ্র আমেরিকার জনগণ ক্ষোভে ফেটে পড়েছে। তারা অবিলম্বে প্রেসিডেন্টের পদত্যাগ চায়। সাধারণ জনগণ রাস্তায় নেমে পড়েছে। জায়গায় জায়গায় পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে। রাষ্ট্রীয় সকল কর্মকাণ্ড স্থবির হয়ে রয়েছে।

অপরদিকে হোয়াইট হাউসে থাকা সকল কর্মচারীর মাথায় হাত। এমন কোনো সংবাদ সম্মেলন তো ডাকাই হয়নি। তাদের প্রেসিডেন্টও তো কোথাও এমন বক্তব্য দেননি। কিন্তু যে ভিডিওটি চারিদিকে ছড়িয়ে পড়েছে তা দেখেই বোঝা যাচ্ছে এটি প্রেসিডেন্ট নিজেই। একই চেহারা, একই গলার স্বর। এমনকি ভিডিওর ব্যাকগ্রাউন্ডেও অবিকল প্রেসিডেন্টের অফিস। প্রযুক্তি বিশ্লেষকরা অনেক চেষ্টা করেও এই ভিডিও যে নকল তা প্রমাণ করতে পারছে না। অপরদিকে বাইরে পরিস্থিতি ক্রমাগত খারাপ হতে চলেছে।

এবার আরেকটি দৃশ্য কল্পনা করুন। অন্যান্য দিনগুলোর মতোই স্বাভাবিকভাবে আপনার দিন কাটছিল। হঠাৎ কাছের একজন মানুষ ইন্টারনেটে আপনাকে একটি ভিডিও পাঠায়। ভিডিওটি চালু করার পর আপনি রীতিমতো আকাশ থেকে পড়লেন। এটি একটি অশ্লীল ভিডিও এবং ভিডিওর মানুষটি আপনি নিজেই। আপনার কাছে এটা একেবারে স্পষ্ট যে, এমন কোনো ভিডিওতেই আপনি নেই। কিন্তু ভিডিওর মানুষটি দেখতে অবিকল আপনার মতো। চোখ, নাক, হাসি, গলার স্বর হুবহু এক। এখন মানুষ কি আপনার কথা বিশ্বাস করতে চাইবে? আপনার আপনজনেরাই বা কীভাবে এর ব্যাখা করবে? খুব দ্রুত এই আপত্তিকর ভিডিও চারিদিকে ছড়িয়ে পড়ছে। পরিবার ও সমাজে আপনি মুখ দেখাতে পারছেন না। অথচ এখানে আপনার কোনো দোষই নেই।

ফটোশপ ও  অন্যান্য কিছু সফটওয়্যার আসার পর থেকে ইচ্ছামতো ও নিখুঁতভাবে নকল ছবি তৈরি করা যায়। তবে নকল ভিডিও বানানো অতটা সহজ ছিল না। ছবিতে একজনের মাথা কেটে অন্য জায়গায় বসানো যতটা সহজ, ভিডিওর ক্ষেত্রে তা ততটা সহজ নয়। কারণ মানুষের গলার আওয়াজ, অভিব্যক্তি, তাকানোর ধরন ইত্যাদি হুবহু নকল করা যেত না। এটি অসম্ভব ছিল একটি নতুন প্রযুক্তি আসার আগ পর্যন্ত।

ফটোশপ ব্যবহার করে নকল ছবি বানানো গেলেও নকল ভিডিও তৈরি করতে উচ্চমানের প্রযুক্তি দরকার।
নকল ভিডিও বানানোর এই প্রযুক্তির নাম ডিপফেক বা ডিপফেক টেকনোলজি। এই প্রযুক্তি ব্যবহার করে যেকোনো মানুষের হুবহু নকল ভিডিও বানানো সম্ভব। মেশিন লার্নিংয়ের প্রয়োগ ঘটানোর মাধ্যমে দিন দিন এই অভিশপ্ত প্রযুক্তিটি আরো নিখুঁতভাবে নকল ভিডিও তৈরি করতে সক্ষম হচ্ছে।


ডিপফেক আসলে কীভাবে কাজ করে?

ডিপফেক বলতে নকল ভিডিও বা অডিওকে বোঝায়। আপাতদৃষ্টিতে তা দেখতে আসল মনে হলেও তা মোটেই আসল নয়। ডিপফেক নামটির মাঝেই এর সংজ্ঞা নিহিত রয়েছে। ডিপ মানে গভীর এবং ফেক মানে নকল। অর্থাৎ ডিপফেক বলতে এমন কিছুকে বোঝায় যা খুবই গভীরভাবে নকল করা হয়েছে। মেশিন লার্নিং হলো ডিপফেক ভিডিও বানানোর প্রধান অস্ত্র। মেশিন লার্নিংয়ের একটি কৌশলের নাম "জেনারেল অ্যাডভারসেরিয়াল নেটওয়ার্ক" (GAN)। এর মাধ্যমে প্রথমে একজন ব্যক্তির বিভিন্ন অভিব্যক্তির হাজারখানেক ছবি সংগ্রহ করা হয়। এরপর সেই ছবিগুলো মেশিন লার্নিংয়ের মাধ্যমে প্রক্রিয়া করে তার মুখের সব ধরনের অভিব্যক্তির একটি সিমুলেশন তৈরি করা যায়। কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তার উত্তরোত্তর উন্নতির ফলে ব্যক্তির গলার আওয়াজও হুবুহু নকল করা সম্ভব। এসব ভিডিও ও অডিও নানাভাবে প্রক্রিয়া করে এমন একটি নকল ভিডিও তৈরি করা হয় যা খালি চোখে শনাক্ত করা অনেক কঠিন।
মুখমন্ডলের বিভিন্ন অভিব্যক্তি ধারণ করে মেশিন লার্নিং দিয়ে নকল ভিডিও বানানো হয়।
আমাদের দৃষ্টিসীমার পর্যায়কাল ০.১ সেকেন্ড। অর্থাৎ ১০০ মিলি সেকেন্ডের কম সময়ে ঘটে যাওয়া কোনো দৃশ্য আমাদের চোখে বাঁধবে না। কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তা দিয়ে তৈরি করা ভিডিওগুলোতে নানা ধরনের রূপান্তর ঘটে এর থেকেও কম সময়ে। তাই খালি চোখের পক্ষে আসল-নকলের যাচাই করা সম্ভব হয় না।

ডিপফেক টেকনোলজি দ্বারা সবচেয়ে বেশি ক্ষতিগ্রস্ত হয় রাজনীতিবিদ ও বিভিন্ন সেলিব্রিটিরা। এর কারণ তাদের নানা ভিডিও, ছবি ইত্যাদি ইন্টারনেটে বেশি সহজলভ্য। একজন অভিনেতার চেহারার বিভিন্ন ধরনের অভিব্যক্তি ইন্টারনেটে পাওয়া সবচেয়ে সহজ। তাই তারাই প্রথমে এই ক্ষতিকর প্রযুক্তির শিকার হয়।

ডিপফেক কতটা বিপজ্জনক? 

আধুনিক যুগ ইন্টারনেটের যুগ। আরো স্পষ্ট করে বলতে গেলে সোশ্যাল মিডিয়ার যুগ। একটা খবর সোশ্যাল মিডিয়ার মাধ্যমে যত দ্রুত মানুষের কাছে পৌঁছায়, অন্য কোনো মাধ্যম দ্বারা তা সম্ভব না। তাই বিভ্রান্তি ছড়ানোর জন্য এটি একটি উৎকৃষ্ট জায়গা। কোনো রকম সত্যতা যাচাই করা ছাড়াই খবর দ্রুত ছড়িয়ে পড়ে। গুজব সংবাদ দ্রুত মানুষের মুখে মুখে পৌঁছে যায়। মানুষের চিন্তাধারাকে নিয়ন্ত্রণ করার এর থেকে সহজ পন্থা আর নেই। আর এখানেই ডিপফেক টেকনোলজির জয়জয়কার।

ইন্টারনেটের বদৌলতে এখন মিথ্যা তথ্য খুব দ্রুত চারিদিকে ছড়িয়ে পড়ে।

ডিপফেক নিয়ে বিভিন্ন সময়ে বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ ব্যক্তি দুশ্চিন্তা প্রকাশ করেছেন। মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের ফ্লোরিডা অঙ্গরাজ্যের রিপাবলিকান সিনেটর মার্কো রুবিও এই টেকনোলজিকে পারমাণবিক অস্ত্রের সমতুল্য হিসেবে দাবী করেছেন। তিনি বলেছেন-
“তোমরা যদি মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রকে হুমকি দিতে চাও, তাহলে আগে তোমাদের দশটা এয়ারক্রাফট ক্যারিয়ার লাগতো, পারমাণবিক অস্ত্র লাগতো, লং রেঞ্জের মিসাইল লাগতো। কিন্তু আজ তোমাদের কেবল আমাদের ইন্টারনেট ব্যবস্থায় প্রবেশ করতে হবে, ব্যাংকিং ব্যবস্থায় অনুপ্রবেশ করতে হবে, বৈদ্যুতিক গ্রিডের উপর নিয়ন্ত্রণ প্রতিষ্ঠা করতে হবে। কিন্তু শুধু যে জিনিসটা করলেই হয়ে যায়, তা হলো তোমাদের একেবারে বাস্তবসম্মত নকল ভিডিও তৈরি করার ক্ষমতা থাকতে হবে। যেটা আমাদের নির্বাচনকে ক্ষতিগ্রস্ত করবে। অনেক প্রশ্নের সৃষ্টি করবে। দেশকে এক চরম সঙ্কটের মুখে ঠেলে দেবে।“
দ্য ওয়াল স্ট্রিট জার্নালের রিসার্চ ও ডেভেলপমেন্ট বিভাগের প্রধান ফ্রান্সেসকো মার্কোনি বলেছেন-
“পরবর্তী প্রজন্মের যত গুজব সংবাদ কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তা দ্বারা পরিচালিত হবে।“

কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তা আসল ও নকলের মাঝে সব ভেদাভেদ দূর করে দিতে সক্ষম।
এভাবে সামাজিক, রাজনৈতিক সকল ক্ষেত্রে এটি ব্যাপক প্রভাব বিস্তার করতে পারে। একটি সুখী দম্পতির মধ্যকার ভালোবাসা ও বিশ্বাস নিমেষে ভেঙে চুরমার করে দিতে পারে এই প্রযুক্তি। সৃষ্টি করতে পারে রাজনৈতিক অরাজকতা। কোনটি আসল আর কোনটি নকল তা নিয়ে এক বিশাল দ্বন্দ্ব দেখা দিবে মানুষের মনে। আর আপত্তিকর ভিডিও ছড়ানোর আশঙ্কা তো রয়েছেই।


কিছু বাস্তব উদাহরণঃ

রাজনৈতিক ঘটনা দিয়েই শুরু করা যাক। বর্তমান মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পকে সবাই চেনেন। নিজের নানা কুখ্যাত বক্তব্যের জন্য এমনিতেই তিনি অনেক জনপ্রিয়। ২০১৮ সালের মে মাসে তার একটি ভিডিও ইন্টারনেটে ছড়িয়ে পড়ে। তাতে তিনি বেলজিয়ামের নাগরিকদের সেই দেশের জলবায়ু পরিবর্তন ইস্যু নিয়ে উপদেশ দিয়েছেন। এই ভিডিওতে তার মুখের ভাষা ছিল খুব খারাপ। বেলজিয়ান জনগণ মার্কিন প্রেসিডেন্টের এমন আচরণ সহজভাবে নেয়নি। তারা টুইটারে প্রেসিডেন্ট ও আমেরিকা নিয়ে অনেক কটু কথা বলতে থাকে। এভাবে এক বিভ্রান্তিকর পরিস্থিতির সৃষ্টি হয়।
পরে জানতে পারা যায় যে, এটি একটি বেলজিয়ান রাজনৈতিক দলের কাজ। তারা একটি প্রোডাকশন স্টুডিওর সাহায্য নিয়ে এই নকল ভিডিও তৈরি করে। তাদের মূল উদ্দেশ্য ছিল জনগণের মনোযোগ আকর্ষণ করা, যাতে জলবায়ু পরিবর্তনের ব্যাপারে বেলজিয়ান সরকার গুরুত্বপূর্ণ পদক্ষেপ নেয়।

একটি বেলজিয়ান রাজনৈতিক দল তাদের টুইটার পেজে ডোনাল্ড ট্রাম্পের নকল ভিডিও পোস্ট করে।
এরকম আরো অনেক ঘটনা রয়েছে। সাবেক মার্কিন প্রেসিডেন্ট বারাক ওবামার কথাই ধরুন। তার একটি নকল ভিডিও রয়েছে যাতে তিনি সরাসরি ডোনাল্ড ট্রাম্পকে গালি দিয়েছেন। আগে থেকে বলে না দিলে এই ভিডিও যে আসল না নকল, তা কেউ আঁচ করতে পারবে না। তাহলে একটু চিন্তা করে দেখুন, এই প্রযুক্তি কোনো রাজনৈতিক অরাজকতা সৃষ্টি করতে কত বড় ভূমিকা রাখতে পারে।


উপরে বারাক ওবামার যে ভিডিওটি দেখানো হয়েছে তা আসলে চলচ্চিত্র পরিচালক জর্ডান পিলি ও বাজফিড ওয়েবসাইটের সম্মিলিত প্রয়াসে বের করা হয়। এই ভিডিওর মাধ্যমে তারা ডিপফেক টেকনোলজির খারাপ দিক সম্পর্কে সাধারণ জনগণকে হুঁশিয়ার করে দিয়েছেন।
মিডিয়া জগতে ডিপফেকের ব্যবহার অহঃরহ লেগেই আছে। সেলিব্রিটিদের আপত্তিকর ভিডিওর কথা তো আগেই বলা হয়েছে। চলচ্চিত্রেও এর ব্যবহার থেমে নেই। ইন্টারনেটে একসময় অভিনেতা নিকোলাস কেইজকে নিয়ে বেশ হাস্যরসের সৃষ্টি হয়। বিভিন্ন বিখ্যাত সিনেমার বিভিন্ন চরিত্রে আসল অভিনেতার জায়গায় তার মুখ বসিয়ে ভিডিও ইন্টারনেটে ছেড়ে দেওয়া হয়। এই মাথা কেটে বসানো ভিডিওগুলো ছিল অনেক নিখুঁত ও বাস্তবসম্মত।

ম্যান অফ স্টিল সিনেমায় অভিনেত্রী এমি এডামসের মুখের উপর নিকোলাস কেইজের মুখ বসানো হয়েছে।
'স্টার ওয়্যারস' খ্যাত অভিনেত্রী ক্যারি ফিশারকে অনেকেই চিনে থাকবেন। ২০১৬ সালে এই চলচ্চিত্র সিরিজেরই একটি প্রিকুয়েল “রৌগ ওয়ান” মুক্তি পায়। এই সিনেমার এক দৃশ্যে সিরিজের জনপ্রিয় চরিত্র প্রিন্সেস লিয়ার যুবতী সময়ের কিছু দৃশ্য প্রয়োজন ছিল। কিন্তু ক্যারি ফিশার তখন ষাট বছরে পা দিয়েছেন। তাই তার কম বয়সী সংস্করণ তৈরি করতে এই ডিপফেক প্রযুক্তির আশ্রয় নেওয়া হয়। উল্লেখ্য, সিনেমা মুক্তির একই মাসে ২৭শে ডিসেম্বর এই জনপ্রিয় অভিনেত্রী মৃত্যুবরণ করেন।


প্রযুক্তিবিদরা বিভিন্ন নকল শনাক্তকরণ পদ্ধতি নিয়ে গবেষণা করছেন।

ডিপফেক ভিডিও শনাক্ত করার জন্য ইতোমধ্যেই গবেষকরা উঠে পড়ে লেগেছেন। বিশেষভাবে বলতে হবে প্রফেসর হ্যানি ফরিদের কথা। ইউনিভার্সিটি অফ ক্যালিফোর্নিয়ার কম্পিউটার বিজ্ঞান বিভাগের এই প্রফেসর প্রায় বিশ বছর ধরে ডিজিটাল জালিয়াতি নিয়ে কাজ করছেন। তিনি এসব নকল ভিডিও শনাক্তকরণের জন্য নানা নতুন কৌশলের উদ্ভাবন করে চলেছেন। সাম্প্রতিক সময়ে এই পথে সাফল্যও অর্জন করেছেন। কথা বলার সময় মানুষের মুখমন্ডলে রক্তপ্রবাহের তারতম্য ঘটে। এটি মেশিন লার্নিং দিয়ে শনাক্ত করা যায় না। তিনি বর্তমানে এ ব্যাপারটি নিয়ে কাজ করছেন। তবে তিনি নিজে এখনো আশঙ্কামুক্ত নন। তার মতে, ডিপফেকের বিরুদ্ধে এসব ফরেনসিক টেকনোলজি বের করতে বছরের পর বছর সময় লেগে যায়। আর ডিপফেক টেকনোলজি প্রতিনিয়ত হালনাগাদ হচ্ছে। তাই এর শনাক্তকরণ পদ্ধতিগুলো গোপন রাখা জরুরী। দিন শেষে এগুলো ফাঁস হয়ে গেলে নকলবাজরা তা কাজে লাগাবে। এলগোরিদমে তাদের সামান্য পরিবর্তন পুরো বছরের শ্রম বৃথা করে দিতে পারে।

হ্যানি ফরিদ ২০ বছর ধরে ডিজিটাল জালিয়াতি শনাক্তকরণ প্রযুক্তি নিয়ে কাজ করছেন।
ইন্টারনেটের মাধ্যমের নানা গুজব ছড়ানো এখন নিত্যদিনের ব্যাপার। কোনটি সত্য ও কোনটি মিথ্যা তা নিয়ে জনগণ আগে থেকেই অনেক বিভ্রান্ত। তাই এমন অভিশপ্ত প্রযুক্তি যেন আরো শক্তিশালী হয়ে না ওঠে এবং দ্রুত এর প্রতিরোধ ব্যবস্থা গড়ে তোলা যায়, সেজন্য প্রযুক্তিবিদ ও গবেষকদের এগিয়ে আসতে হবে। ইতোমধ্যেই ফেসবুক এসব ডিপফেক ভিডিও শনাক্তকরণের জন্য কাজ করছে। অন্যান্য বিভিন্ন কোম্পানিও এ ব্যাপারে বেশ গুরুত্ব দিচ্ছে।

Saturday, November 25, 2017

অতিরিক্ত স্মার্টফোন ব্যবহারের আসক্তিতে যে ৫টি ক্ষতি হতে পারে!

সব কিছুরই আছে ভালমন্দ। যে স্মার্টফোন ছাড়া আমাদের এক মুহূর্তও চলে না, তার বেলায়ও কথাটা সত্য। এই স্মার্টফোন যেমন ভাল বন্ধু হতে পারে, তেমনই মারাত্মক ক্ষতিও করতে পারে। অতিরিক্ত স্মার্টফোন ব্যবহারের ক্ষতিকর দিকগুলো কী─

(১) শ্রবণ শক্তি কমতে পারেঃ



স্মার্টফোন কান থেকে দূরে রেখে তো আর ব্যবহার করা যায় না। ফলে বেশি সময় কানে ফোন রেখে কথা বললে সমস্যা তৈরি হয়। তুলনায় হেডফোন ব্যবহার করা ভাল। আবার হেডফোন ব্যবহার করে খুব জোরে গান শুনলে কানের ভিতরের কোষে তার প্রভাব পড়ে এবং মস্তিষ্কেও সমস্যা হয়। চিকিৎসকরা বলছেন, বধির হয়ে যাওয়ার আশঙ্কাও থাকে।

(২) অস্থি-সন্ধির ক্ষতিঃ



অতিরিক্ত সময় ধরে মেসেজ টাইপ করা হলে আঙুলের জয়েন্টগুলোতে ব্যথা হতে পারে এবং অবস্থা বেশি খারাপ হলে আর্থরাইটিসের মতো সমস্যা দেখা দিতে পারে। অনেকে কাজের সময় কাঁধ ও কানের মাঝে ফোন রাখেন। অতিরিক্ত ঝুঁকে বসে দীর্ঘ সময় ধরে মেসেজ পাঠান। এ সবই শরীরে বিভিন্ন অস্থি-সন্ধির ক্ষতি করে। পাকাপাকি ক্ষতি হতে পারে শিরদাঁড়ায়।

(৩) নিদ্রাহীনতাঃ



স্মার্টফোন, ট্যাবলেট, ল্যাপটপ, ডেস্কটপের অতিরিক্ত ব্যবহার ও অতিরিক্ত টেলিভিশন দেখার ফলে সবচে বেশি দেখা দেয় ঘুমের সমস্যা বা নিদ্রাহীনতা। যারা ঘুমাতে যাওয়ার আগে এ ধরনের প্রযুক্তিপণ্য অতিমাত্রায় ব্যবহার করেন তাদের শরীরে মেলাটোনিনের ঘাটতি দেখা দিতে পারে। যার কারণ প্রযুক্তিপণ্য থেকে নির্গত উজ্জ্বল আলো। এক পর্যায়ে ঘুমের মারাত্মক সমস্যা দেখা দেয় এবং স্লিপ ডিজঅর্ডারের ঝুঁকি তৈরি হয়।

(৪) চোখের জ্যোতি কমতে পারেঃ



খবরের কাগজ বা বই পড়ার ক্ষেত্রে সাধারণত চোখ থেকে গড়ে ৪০ সেন্টিমিটার দূরত্ব থাকে। স্মার্টফোন ব্যবহারকারীরা সাধারণত চোখ থেকে ৩০ সেন্টিমিটার দূরত্ব রেখে তা ব্যবহার করেন। অনেকের ক্ষেত্রে এ দূরত্ব মাত্র ১৮ সেন্টিমিটার। এতে করে মায়োপিয়া বা ক্ষীণ দৃষ্টির সমস্যা দেখা দিতে পারে।

(৫) ঘনত্ব কমে শুক্রাণুরঃ


গবেষকেরা জানান, মুঠোফোন থেকে হাই ফ্রিকোয়েন্সির ইলেকট্রো-ম্যাগনেটিক রেডিয়েশন নির্গত হয়। এই ক্ষতিকর তরঙ্গের সঙ্গে মস্তিষ্কে ক্যানসারের যোগসূত্র থাকতে পারে। এ ছাড়া শরীরের অন্য কোষকলা এই ক্ষতিকর তরঙ্গের প্রভাবে ক্ষতির মুখে পড়তে পারে। ক্ষতির আশঙ্কা রয়েছে পুরুষের প্রজননতন্ত্রেরও। গবেষকেদের দাবি, মুঠোফোন থেকে নির্গত ক্ষতিকর তরঙ্গ শুক্রাণুর ওপর প্রভাব ফেলে এবং শুক্রাণুর ঘনত্ব কমিয়ে দিতে পারে।

Sunday, October 15, 2017

দুনিয়া কাঁপিয়ে দেয়া ৯টি ছবি!

বলা হয়ে থাকে, একটি ছবিতে যা প্রকাশ করা যায় তা হাজার লাইন লিখেও করা যায় না। কিছু ছবি মানুষকে হাসায়, কিছু বিষণ্ণ করে, কিছু হয়তো আতঙ্কগ্রস্তও করে। কিন্তু এরকম কিছু ছবি আছে যা মন ছুঁয়ে যায়, কাঁদতে বাধ্য করে একজন মানুষকে। আপনার হৃদয়কে কিছুটা নাড়া দিবে হয়ত মাত্র এই কয়েকটা ছবি। চলুন দেখে নেয়া যাক ছবিগুলো।


(১) ভূপালের গ্যাস ট্রাজেডিঃ

ছবি-১
১৯৮৪ সালে ভারতের মধ্যপ্রদেশের ভূপালে একটি কীটনাশক তৈরির কারখানায় বিস্ফোরণ ঘটলে বিষাক্ত মিথাইল আইসোসায়ানাইড গ্যাসে আক্রান্ত হয়ে ৫ লাখ ৫৮ হাজার ১২৫ জন মানুষ আহত হন এবং নিহত হন প্রায় ১৫ হাজারের মত মানুষ। ফটোসাংবাদিক পাবলো বার্থোলোমিউ দ্রুত ঘটনাস্থলে ছুটে যান। এ ছবিটি তারই তোলা যা দুর্ঘটনায় নিহত শিশুটিকে মাটিতে সমাহিত করার আগ মূহুর্তে তোলা হয়।

(২) রানা প্লাজায় ধসঃ

ছবি-২
২০১৩ সালের ২৪ এপ্রিলে সাভারের রানা প্লাজা ধ্বসের ঘটনায় মুহূর্তেই মানুষের মাঝে ছড়িয়ে পড়ে শোক এবং উৎকণ্ঠা। ধ্বংসস্তূপ থেকে আহত-নিহত মানুষদের বের করে আনার পুরো প্রক্রিয়াটা চলেছে দিনের পর দিন। আর তার মাঝে দিয়ে আমরা সবাই একটু একটু করে উপলব্ধি করেছি নিদারুণ সেই বিভীষিকা। ব্যাপারটি এতই গুরুতর যে দেশের গণ্ডি পেরিয়ে বিশ্বের মানুষের কাছে এর সংবাদ চলে যায়, সেই সাথে এই ধ্বংসস্তূপ থেকে তোলা বিভিন্ন ছবি। যেমন, তাসলিমা আখতারের তোলা প্রচ্ছদের এই ছবিটি। দুইজন মানুষের পরস্পরকে জড়িয়ে ধরে বেঁচে থাকার যে ভীষণ আকুতি উঠে এসেছে এই ছবিতে, শত বলেও তা ব্যাখ্যা করা যাবে না। কি করে মৃত্যু হলো তাদের? তারা কি একজন আরেকজনকে বাঁচিয়ে রাখার চেষ্টা করছিলেন? কেমন ছিলো তাদের জীবন, তাদের স্বপ্ন? না জানি কী ভীষণ ভালোবাসায় মৃত্যুর পূর্ব মুহূর্তে পরস্পরকে আঁকড়ে ধরেছিলেন তারা! পৃথিবীর বিভিন্ন দেশে এখনো আলোচিত হয়ে যাচ্ছে মর্মস্পর্শী এই নিদারুণ করুন ছবিটি।

(৩) ক্যান্সারে আক্রান্ত ছোট্ট মেয়েটিঃ

ছবি-৩
এ ছবিটি একটি ছোট মেয়ের, যে কিনা ক্যান্সারে আক্রান্ত ছিল। কেমোথেরাপির কারণে তার মাথার চুল সব পড়ে যায়। আয়নাতে কি মেয়েটি তার মনের ইচ্ছাটুকুই ফুটিয়ে তোলার চেষ্টা করছিল? মেয়েটি এখনো বেঁচে আছে কিনা আমাদের জানা নেই।

(৪) মানুষ মানুষের জন্যঃ

ছবি-৪
উগান্ডাতে ১৯৮০ সালে চলছিল প্রচণ্ড দুর্ভিক্ষ। অনাহারের শিকার এক শিশুর হাত পরম মমতায় ধরে রেখেছেন দাতব্য সংস্থার একজন কর্মী। মর্মস্পর্শী এ ছবিটি তুলেছেন মাইক ওয়েলস।

(৫) প্রিয় শিক্ষকের জন্য বেদনার সুরঃ

ছবি-৫
ডিয়েগো ফ্র্যাজাও টোরকোয়াটো নামে ১২ বছরের এই ব্রাজিলিয়ান ছেলেটি তার প্রিয় শিক্ষকের শেষকৃত্যানুষ্ঠানে ভায়োলিন বাজাচ্ছে, চোখে বেয়ে ঝরে পড়ছে তীব্র কষ্টের অশ্রু। সেই শিক্ষক ছোট এ ছেলেটিকে সঙ্গীতের সাহায্যে দারিদ্র ও সংঘাত থেকে মুক্তি পেতে সহযোগিতা করেছিলেন।

(৬) ওয়ার্ল্ড ট্রেড সেন্টার থেকে পড়ন্ত মানুষঃ

ছবি-৬
২০০১ সালের ১১ সেপ্টেম্বর সন্ত্রাসী হামলায় বিধ্বস্ত হয় যুক্তরাষ্ট্রের টুইন টাওয়ার। পুরো ভবনে আগুন ধরে গেলে অনেকেই নিচে ঝাঁপ দেন জীবন বাঁচানোর আশায়। সেরকমই এক হতভাগ্য ব্যক্তির ছবি তুলেন এপি’র আলোকচিত্রশিল্পী রিচার্ড ড্রিউ। বলাই বাহুল্য যে মানুষটি বাঁচাতে পারেন নি নিজের জীবন।

(৭) থাইল্যান্ডের বিশ্ববিদ্যালয়ে গণহত্যাঃ

ছবি-৭
থাইল্যান্ডের নির্বাসিত স্বৈরশাসক ফিল্ড মার্শাল থামম কিটিকাচর্নের দেশে ফিরে আসার কথা শুনে বিক্ষোভে উত্তাল হয়ে উঠে পুরো থাইল্যান্ড। থামাসাত বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্ররাও এর ব্যতিক্রম ছিল না। এ বিশ্ববিদ্যালয়ে বিক্ষোভরত ছাত্রদের উপর গণহত্যা চালানো হয় ১৯৭৬ সালের ৬ অক্টোবর। বহু ছাত্রকে গুলি করে, পিটিয়ে বা আগুনে পুড়িয়ে মারা হয়। সেরকমই একটি ঘটনার ছবি তুলেছেন নীল ইউলেভিচ, যেটা ১৯৭৭ সালে পুলিৎজার প্রাইজ পায়।

(৮) সুদানের ভয়াবহ দুর্ভিক্ষ ১৯১৩ঃ

ছবি-৮
বিশ্ববিখ্যাত ও একইসাথে প্রবল সমালোচিত এ ছবিটি ১৯৯৩ সালে ‘নিউ ইয়র্ক টাইমস’ পত্রিকায় প্রকাশিত হয়। আর এর মাধ্যমেই আলোতে আসেন আলোকচিত্রশিল্পী কেভিন কার্টার। সুদানের দুর্ভিক্ষের সময় তোলা এ ছবিটি ১৯৯৪ সালে জিতে নেয় পুলিৎজার পুরস্কার। এতে দেখা যায়, দুর্ভিক্ষে খেতে না পেয়ে জীর্ণ-শীর্ণ একটি শিশু মাটিতে মূমুর্ষ অবস্থায় পড়ে আছে, আর খুব কাছেই একটি শকুন বসে আছে। যেন কখন শিশুটি মারা যাবে ও এটা শিশুটিকে খেয়ে ফেলতে পারবে তারই অপেক্ষা। ছবিটি ভয়াবহ বিতর্ক তৈরি করে। কথা উঠে যে, ছবি তুলে শিশুটিকে বাঁচানোর কোনো চেষ্টা কেভিন করেছিলেন কি না? কেভিনের নিজেরও মনে হতে শুরু করে যে, তিনি হয়তো চাইলে শিশুটিকে বাঁচাতে পারতেন। তীব্র মানসিক যন্ত্রণা থেকে ১৯৯৪ সালে তিনি আত্মহত্যা করেন। যদিও শিশুটি সেসময় মারা যায় নি, আরো বেশ কিছুদিন বেঁচে ছিল। নিয়ং কং নামের ছবির ছেলেটি মারা যায় ২০০৭ সালে।

(৯) যখন সব চেষ্টা ব্যর্থ হয়ে যায়ঃ

ছবি-৯
১৯৮৫ সালে কলম্বিয়াতে আরমেরো নামে ছোট গ্রামের পাশেই নেভাদো দেল রুইজ নামে আগ্নেয়গিরিতে অগ্ন্যুৎপাত ঘটে। পুরো গ্রামের উপর এর প্রতিক্রিয়া ছিল ভয়াবহ। এতে ব্যপক ভূমিধ্বসের সৃষ্টি হয়। অমায়রা স্যানচেজ নামে ১৩ বছরের এই মেয়েটি একটি বিধ্বস্ত ভবনের নিচে আটকা পড়ে। উদ্ধারকর্মীদের সব চেষ্টাকে ব্যর্থ করে দিয়ে টানা ৬০ ঘণ্টা আটকে থাকার পর সে মারা যায়।

Thursday, September 7, 2017

বিশ্বের সেরা ১০ বিশ্ববিদ্যালয়।

প্রতি বছর বিভিন্ন সংস্থার উদ্যোগে পৃথিবীর বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয়ের র‍্যাংকিং করা হয়। বিভিন্ন মানদণ্ডের উপর ভিত্তি করে এসব তালিকা তৈরি করা হয়। ছাত্র, শিক্ষক, শিক্ষার পরিবেশ, গবেষণার পরিবেশ, ল্যাবরেটরি, গবেষণাপত্রের সংখ্যা, গবেষণার মান, নিজস্ব ওয়েবসাইট প্রভৃতি হচ্ছে র‍্যাংকিংয়ের ভিত্তি। একেক দৃষ্টিকোণ থেকে দেখলে একেক বিশ্ববিদ্যালয় সেরার অবস্থানে আসে।
অক্সব্রিজ বিশ্ববিদ্যালয়।
আবার একেক বছর সেরা হিসেবে বিশ্ববিদ্যালয়গুলো একেক অবস্থানে থাকে। তবে কিছু কিছু বিশ্ববিদ্যালয় আছে যেগুলোকে যে স্কেল দিয়ে যাচাই করা হোক না কেন, যে বছরেই বিবেচনা করা হোক না কেন, ঘুরেফিরে প্রথম দিকেই থাকে। এরকম কিছু বিশ্ববিদ্যালয় হচ্ছে এমআইটি, অক্সফোর্ড, হার্ভার্ড, ক্যালটেক, স্ট্যানফোর্ড, ক্যামব্রিজ, প্রিন্সটন প্রভৃতি বিশ্ববিদ্যালয়। এরকম সেরা ১০টি বিশ্ববিদ্যালয় সম্পর্কে তুলে ধরা হলো এখানে। তালিকার ক্রম সাজাতে টাইম হায়ার এডুকেশন প্রকাশিত র‍্যাংকিং ব্যবহার করা হয়েছে।


১. অক্সফোর্ড বিশ্ববিদ্যালয় (যুক্তরাজ্য):

অক্সফোর্ড বিশ্ববিদ্যালয়, যুক্তরাজ্য।
নানা দিক থেকে নানা বিশ্ববিদ্যালয় হয়তো অক্সফোর্ডের চেয়ে উপরে অবস্থান করতে পারবে। কিন্তু কিছু দিক থেকে অক্সফোর্ডের অহংকার শত বছরেও অন্য বিশ্ববিদ্যালয়ের নিচে যাবে না। এটি বিশ্বের অন্যতম প্রাচীন বিশ্ববিদ্যালয়। ১০৯৬ সালেরও আগে প্রতিষ্ঠিত এই বিশ্ববিদ্যালয়ের গর্ব করার মতো অনেক কিছু আছে। দীর্ঘ এই সময়ে হাজার হাজার গুণীজনের জন্ম দিয়েছে এই বিশ্ববিদ্যালয়। মোটা দাগে উল্লেখ করলে ইংল্যান্ডের ৪ জন রাজা, ২৫ জন ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী, ৮ জন বিদেশি রাজা, ১ জন পোপ, ১৮ জন কার্ডিনাল, ৭ জন সেইন্ট এবং প্রায় অর্ধশত নোবেল লরিয়েট এখান থেকে লেখাপড়া সম্পন্ন করেছিলেন। অস্কার ওয়াইল্ড, স্টিফেন হকিং, বিল ক্লিনটন, ইন্দিরা গান্ধী সহ অনেক খ্যাতনামা ব্যক্তিত্ব তৈরি হয়েছে এই বিশ্ববিদ্যালয় থেকেই। ২২ হাজার ছাত্র একত্রে লেখাপড়া করতে পারে এখানে। ১০০টি লাইব্রেরি মিলে যুক্তরাজ্যের সবচেয়ে বড় লাইব্রেরি সিস্টেম এখানেই অবস্থিত। এই বিশ্ববিদ্যালয়ে ‘অক্সফোর্ড ইউনিভার্সিটি প্রেস’ নামে একটি স্বতন্ত্র প্রকাশনাও আছে।


২. ক্যামব্রিজ বিশ্ববিদ্যালয় (যুক্তরাজ্য):

ক্যামব্রিজ বিশ্ববিদ্যালয়, যুক্তরাজ্য।
বেশ কয়েক বছর ধরে এটি প্রথম অবস্থানে ছিল। বর্তমানে অন্যান্যরা উপরে উঠে যাওয়াতে একে কিছুটা নিচে নামতে হয়েছে। এটিও পৃথিবীর অন্যতম প্রাচীন বিশ্ববিদ্যালয়। এটি স্থাপিত হয়েছিল ১২০৯ সালে। বিশ্বের বিভিন্ন প্রান্ত থেকে প্রায় ১৮ হাজার শিক্ষার্থী লেখাপড়া করতে পারে এখানে। এখান থেকে ৯০ জনেরও বেশি ব্যক্তি নোবেল পুরস্কার পেয়েছে। অনেক বিখ্যাত ব্যক্তির আবাস ছিল এখানে। আইজ্যাক নিউটন, চার্লস রবার্ট ডারউইন, শ্রীনিবাস রামানুজন, জি এইচ হার্ডি, স্টিফেন হকিং, জামাল নজরুল ইসলাম সহ অনেক বিখ্যাতদের ধারণ করেছে এই বিশ্ববিদ্যালয়। এখানেও অক্সফোর্ডের মতো বিস্তৃত লাইব্রেরি সিস্টেম আছে। ক্যামব্রিজের লাইব্রেরিতে প্রায় ১৫ মিলিয়ন বই আছে। তাছাড়াও ‘ক্যামব্রিজ ইউনিভার্সিটি প্রেস’ নামে স্বতন্ত্র একটি প্রকাশনা সংস্থা আছে এর। এখান থেকে জ্ঞান-বিজ্ঞানের উচ্চস্তরের বই প্রকাশ করা হয়। এখানকার গবেষণা সাময়িকীগুলোর মান অনেক ভালো এবং আন্তর্জাতিকভাবে সেরা গবেষকরা সেখানে তাদের গবেষণাপত্র প্রকাশ করেন।


৩. ক্যালিফোর্নিয়া ইন্সটিটিউট অব টেকনোলজি (যুক্তরাষ্ট্র):

ক্যালিফোর্নিয়া ইন্সটিটিউট অব টেকনোলজি, যুক্তরাষ্ট্র।
যুক্তরাষ্ট্রে অবস্থিত বেসরকারি এই বিশ্ববিদ্যালয়টি ‘ক্যালটেক’ নামেও পরিচিত। ভালো ক্যাম্পাস, উন্নত মানের গবেষণা, গবেষণার উন্নত পরিবেশ প্রভৃতি একে অনন্য উচ্চতায় নিয়ে গেছে। সারা বিশ্ব থেকে শিক্ষার্থীরা এখানে শিক্ষা লাভ করতে আসে। নাসার জেট প্রপালশন ল্যাবরেটরি, ক্যালটেক সিসমোলজিক্যাল ল্যাবরেটরি, ইন্টারন্যাশনাল অবজারভেটরি নেটওয়ার্ক সহ অনেক উন্নতমানের গবেষণাগার এখানে অবস্থিত। ৩৫টি নোবেল পদক, ১টি ফিল্ডস পদক, ৭১টি ন্যাশনাল মেডেল অব সায়েন্স ও ন্যাশনাল মেডেল অব টেকনোলজি পদকজয়ী সহ আরো অনেক গুণীকে ধারণ করেছে এই বিশ্ববিদ্যালয়।



৪. স্ট্যানফোর্ড বিশ্ববিদ্যালয় (যুক্তরাষ্ট্র):

স্ট্যানফোর্ড বিশ্ববিদ্যালয়, যুক্তরাষ্ট্র।
যুক্তরাষ্ট্রের অন্যতম বৃহৎ বিশ্ববিদ্যালয় এটি। সারা বিশ্বে অন্যতম মর্যাদাপূর্ণ এই বিশ্ববিদ্যালয়টি স্থাপিত হয় ১৮৮৫ সালে। ২১টি নোবেল পুরস্কার সহ অনেক সফল উদ্যোক্তা, ব্যবসায়ী, রাজনৈতিক ব্যক্তিত্ব, মিডিয়া ব্যক্তিত্ব, ক্রীড়া ব্যক্তিত্ব প্রভৃতি গুরুত্বপূর্ণ ব্যক্তিত্ব আছেন যারা এই বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র। গুগলের উদ্যোক্তা ল্যারি পেইজ ও সার্গেই ব্রিন এখানে লেখাপড়া করেছিলেন। যুক্তরাষ্ট্রের সাবেক প্রেসিডেন্ট জন এফ কেনেডিও ছিলেন এখানকার ছাত্র



৫. ম্যাসাচুসেটস ইন্সটিটিউট অব টেকনোলজি (যুক্তরাষ্ট্র):

ম্যাসাচুসেটস ইন্সটিটিউট অব টেকনোলজি, যুক্তরাষ্ট্র।
যুক্তরাষ্ট্রের বেসরকারি এই বিশ্ববিদ্যালয়টি ১৮৬১ সালে গৃহযুদ্ধের দুই দিন আগে স্থাপিত হয়। অনেক র‍্যাংকিংয়ে এটি প্রথম অবস্থানে থাকে। আধুনিক ও উন্নতমানের গবেষণার জন্য এই বিশ্ববিদ্যালয়ের জুড়ি নেই। চিকিৎসাক্ষেত্রে বা প্রযুক্তি ক্ষেত্রে কিংবা প্রকৌশল ক্ষেত্রে অত্যাধুনিক গবেষণাগুলো এখানে প্রচুর হয়। ৮৫টি নোবেল, ৫৮টি ন্যাশনাল মেডেল অব সায়েন্স, ২৯টি ন্যাশনাল মেডেল অব টেকনোলজি সহ অনেক গুরুত্বপূর্ণ পদকজয়ীরা ঘুরে বেড়িয়েছেন এই বিশ্ববিদ্যালয়ের অলিতে-গলিতে। পেনিসিলিনের রাসায়নিক সংশ্লেষণ, রাডারের উন্নয়ন, মৌলিক কণা কোয়ার্কের আবিস্কার, ম্যাগনেটিক কোর মেমোরি, ডিজিটাল কম্পিউটার প্রভৃতি অনেক আবিস্কার এই বিশ্ববিদ্যালয়কে অলংকৃত করে আছে। বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয় হিসেবে এটি পৃথিবীর সেরা।



৬. হার্ভার্ড বিশ্ববিদ্যালয় (যুক্তরাষ্ট্র):

হার্ভার্ড বিশ্ববিদ্যালয়, যুক্তরাষ্ট্র।
যুক্তরাষ্ট্রের ইতিহাসে সবচেয়ে প্রাচীন এই বিশ্ববিদ্যালয়টি স্থাপিত হয় ১৬৩৬ সালে। বিশ্ববিদ্যালয় তৈরিতে প্রথম দিকের দাতা জন হার্ভার্ডের নাম অনুসারে এর নামকরণ করা হয়েছে। ১৬৩৮ সালে মারা যাবার আগে তিনি তার লাইব্রেরি এবং অর্ধেক সম্পত্তি দান করে গিয়েছিলেন এই বিশ্ববিদ্যালয়কে। ৪৫টি নোবেল, ৪৮টি পুলিৎজার সহ অনেক মূল্যবান পদকজয়ীদের পদচারণা ছিল এই বিশ্ববিদ্যালয়ে। বিশ্বের সবচেয়ে বড় লাইব্রেরি এখানেই অবস্থিত। সাড়ে ২০ মিলিয়ন ভলিউম, ৪০০ মিলিয়ন মেন্যুস্ক্রিপ্ট, ১০ মিলিয়ন আলোকচিত্র, ১২৪ মিলিয়ন ওয়েবপেইজ আর্কাইভ, ৫.৪ টেরাবাইট ডিজিটাল আর্কাইভ সহ অনেক গুরুত্বপূর্ণ জিনিসের সংগ্রহ আছে এখানে।



৭. প্রিন্সটন বিশ্ববিদ্যালয় (যুক্তরাষ্ট্র):

প্রিন্সটন বিশ্ববিদ্যালয়, যুক্তরাষ্ট্র।
এটিও যুক্তরাষ্ট্রের অন্যতম পুরাতন বিশ্ববিদ্যালয়। উচ্চশিক্ষার জন্য সারা বিশ্বে প্রসিদ্ধ এই বিশ্ববিদ্যালয়টি স্থাপিত হয় ১৭৪৬ সালে। প্রথম দিকে এর নাম ছিল কলেজ অব নিউ জার্সি। পরবর্তীতে ১৮৯৬ সালে এর নাম পরিবর্তন করে প্রিন্সটন ইউনিভার্সিটি রাখা হয়। ছাত্রসংখ্যা খুব বেশি নয়, সব মিলিয়ে ১০ হাজারেরও কম শিক্ষার্থী পড়াশোনা করতে পারে একসাথে। ৪০টি নোবেল পুরস্কার, ১৭টি ন্যাশনাল মেডেল অব সায়েন্স সহ অনেক মর্যাদাপূর্ণ পুরষ্কার আছে এর অধীনে। ইতিহাসের অন্যতম সেরা শিক্ষক, বিজ্ঞানী, লেখক রিচার্ড ফাইনম্যান (পদার্থবিদ্যায় নোবেলজয়ী) ছিলেন এখানকার ছাত্র।

৮. ইম্পেরিয়াল কলেজ লন্ডন (যুক্তরাজ্য):

ইম্পেরিয়াল কলেজ লন্ডন, যুক্তরাজ্য।
যুক্তরাজ্যের অন্যতম বিজ্ঞান গবেষণা প্রতিষ্ঠান এটি। ১৫ হাজার ছাত্র ও ৮ হাজার শিক্ষক-কর্মীদের উপস্থিতিতে এখানে চলে বিজ্ঞান, প্রকৌশল, চিকিৎসা ও বাণিজ্য বিষয়ে পড়াশোনা। ১৪টি নোবেল পুরস্কার এসেছে এর মাধ্যমে। আলেকজান্ডার ফ্লেমিং ছিলেন এখানকারই ছাত্র। এইচ জি ওয়েলসের মতো লেখক, রাজিব গান্ধীর মতো রাজনীতিবিদ সহ অনেক গুরুত্বপূর্ণ ব্যক্তিত্ব পড়াশোনা করেছেন এখানে



৯. শিকাগো বিশ্ববিদ্যালয় (যুক্তরাষ্ট্র):

শিকাগো বিশ্ববিদ্যালয়, যুক্তরাষ্ট্র।
১৮৯০ সালে এটি প্রতিষ্ঠা করা হয় এবং ১৮৯২ সালে প্রথম এর ক্লাস শুরু হয়। ৮০টিরও বেশি নোবেল পদক, বিজ্ঞান ও কলা মিলিয়ে ৩০টি জাতীয় পদক, ৯টি ফিল্ডস পদক সহ অনেক সম্মানজনক পুরস্কার অর্জন করেছে এই বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্ররা। জেমস ওয়াটসন, পল স্যামুয়েলসন, রবার্ট লুকাস, জোসেফ ডেভিসন সহ অনেক নামকরা নোবেলজয়ী ব্যক্তিত্ব এখানকার ছাত্র। সুব্রাহ্মণ্যম চন্দ্রশেখর, এনরিকো ফার্মি, মাইকেলসন সহ অনেক গুণী বিজ্ঞানী এখানে ছিলেন শিক্ষক হিসেবে।



১০. সুইস ফেডারেল ইন্সটিটিউট অব টেকনোলজি (সুইজারল্যান্ড):

সুইস ফেডারেল ইন্সটিটিউট অব টেকনোলজি, সুইজারল্যান্ড।
বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি শিক্ষার ক্ষেত্রে বিশ্বের সবচেয়ে সম্মানজনক বিশ্ববিদ্যালয়গুলোর একটি এটি। ‘ফেডারেল পলিটেকনিক স্কুল’ নামে এর প্রতিষ্ঠা হয়েছিল ১৮৫৫ সালে। আধুনিক পদার্থবিদ্যার জনক আলবার্ট আইনস্টাইন ছিলেন এই বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী ও পরবর্তীতে অধ্যাপক। এক্স-রে রশ্মির আবিস্কারক উইলহেম রনজেনের স্নাতক শিক্ষাও এই বিশ্ববিদ্যালয়েই। কোয়ান্টাম পদার্থবিদ্যার প্রাতঃস্মরণীয় বিজ্ঞানী উলফগ্যাং পলি অধ্যাপনা করেছিলেন এখানে। ইউরোপের জ্ঞানের জগতে গবেষণার জন্য পথিকৃৎ এই বিশ্ববিদ্যালয়। পদার্থবিদ্যা, রসায়ন ও চিকিৎসাশাস্ত্রে মোট ২১ জন নোবেল বিজয়ীর পদচারণায় গর্বিত হয়েছে এই ক্যাম্পাস। বিশ্বের ১২০টি দেশ থেকে প্রায় ২০ হাজার শিক্ষার্থী এখানে ব্যস্ত থাকেন বিজ্ঞানের বিভিন্ন শাখায় জ্ঞানার্জনের জন্য।


আরো কিছু সেরা বিশ্ববিদ্যালয়ঃ

১১. ইউনিভার্সিটি অব পেনসিলভানিয়া (যুক্তরাষ্ট্র)
১২. ইয়েল বিশ্ববিদ্যালয় (যুক্তরাষ্ট্র)
১৩. জন হপকিন্স বিশ্ববিদ্যালয় (যুক্তরাষ্ট্র)
১৪. কলাম্বিয়া বিশ্ববিদ্যালয় (যুক্তরাষ্ট্র)
১৫. ইউনিভার্সিটি কলেজ লন্ডন (যুক্তরাজ্য)
১৬. ডিউক বিশ্ববিদ্যালয় (যুক্তরাষ্ট্র)
১৭. ক্যালিফোর্নিয়া বিশ্ববিদ্যালয় (যুক্তরাষ্ট্র)
১৮. কর্নেল বিশ্ববিদ্যালয় (যুক্তরাষ্ট্র)
১৯. নর্থওয়েস্টার্ন বিশ্ববিদ্যালয় (যুক্তরাষ্ট্র)
২০. ইউনিভার্সিটি অব মিশিগান (যুক্তরাষ্ট্র)

Tuesday, June 13, 2017

আপনার নখের নিচে কি সাদা দাগ আছে? জেনে নিন এটা কিসের লক্ষণ।

নখের এই সাদা চিহ্নের বৈজ্ঞানিক নাম। বিজ্ঞানীরা বলছেন, এই দাগ মানুষের স্বাস্থ্যের ভালো মন্দের গুরুত্বপূর্ণ ইঙ্গিত বহন করে। তারা বলেন, এই সাদা দাগ যদি ৮ বা ১০ নখেই থাকে এবং সাদা দাগটি হয় স্পষ্ট তবে তার স্বাস্থ্য কণিকা ঠিকমতো কাজ করছে।
নখের এই সাদা চিহ্ন মানুষের শরীরের স্বাস্থ্য সম্পর্কে নানান তথ্য নির্দেশ করে।
কিন্তু সাদা দাগ যদি হয় অল্প এবং ক্ষয়িঞ্চু তবে বুঝতে হবে তার স্বাস্থ্যের লক্ষণ ভালো নয়। শরীরের ইউরিনগুলো ঠিক মতো কাজ করছে না। ডাক্তাররা বলেন, শারীরিক ও মানসিক সমস্যাগ্রস্ত বহু মানুষের লক্ষণ তার হাত ও আঙ্গুলের মধ্যেই বিদ্যমান থাকে। এ কারণে ডাক্তারা চিকিৎসার সময় এ বিষয়গুলো পরীক্ষা নিরিক্ষা করে থাকেন।

Sunday, January 15, 2017

পদ্ম-পা: এক অমানবিক রুপচর্চার ইতিকথা!

চীনের আগেকার দিনের ছবিগুলো যদি আমরা দেখি তাহলে কিছু নারীর ছবি দেখতে পাবো, যাদের পাগুলো ঠিক আমাদের পায়ের মতো নয়। মাঝখান থেকে বাঁকানো, একেবারে দুমড়েমুচড়ে থাকা আঙুল দেখলে যে কেউই শুরুতে ভাববে যে, কেউ হয়তো তার পা-টা মাঝ বরাবর মুচড়ে দিয়েছে, ভেঙে দিয়েছে তার পায়ের আঙুলগুলো। কিন্তু অদ্ভুত শোনালেও সত্য যে, প্রায় এক হাজার বছর ধরে আনুমানিক ৩০০ কোটি চীনা নারী স্বেচ্ছায় তাদের পায়ের স্বাভাবিক আকৃতি পরিবর্তনের এ পথ অবলম্বন করেছিলো!
পদ্ম-পায়ের এক নারী।
চীনের নারীদের পায়ের স্বাভাবিক আকৃতি পরিবর্তনের এ চর্চাটির খটমটে নাম ‘Foot Binding’ বা ‘পা বাঁধা’। তবে এর মোহে আকৃষ্টরা চর্চাটিকে চমৎকার এক শৈল্পিক নামও দিয়েছিলেন- ‘Lotus Feet’ বা ‘পদ্ম-পা’। আজকের লেখায় এই পদ্ম-পায়ের পেছনের ইতিহাস, কিভাবে এ কষ্টদায়ক কাজটি একজন নারীর উপর সারা হতো, কিভাবে এর অবসান ঘটলো, সমাজ জীবনে এর প্রভাব কেমন ছিলো- এমনই নানা প্রশ্নের উত্তর খোঁজা হয়েছে।

কিভাবে হলো পদ্ম-পায়ের প্রচলন?

চীনের নারীদের বিচিত্র এ পদ্ম-পায়ের প্রচলন যে ঠিক কবে, কিভাবে শুরু হয়েছিলো তা নিয়ে সঠিক নির্ভরযোগ্য তথ্য তেমন একটা পাওয়া যায় না। নানা জায়গায় মেলে নানা মতের সন্ধান।

আনুমানিক ১৬০০ থেকে ১০৪৬ খ্রিষ্টপূর্বাব্দ পর্যন্ত চীনে শ্যাং রাজবংশের শাসন চালু ছিলো। এ বংশেরই এক রাজা ছিলেন ঝৌ। তার প্রিয় এক উপপত্নী ছিলো দাজি, যার কিনা ক্লাবফুটের সমস্যা ছিলো। দাজি নাকি রাজার কাছে আবদার করেছিলেন যে, তিনি যেন রাজসভায় থাকা সকল নারীকে পা বেঁধে রাখতে বলেন, যেন তার পা তখন সৌন্দর্য ও আভিজাত্যের প্রতীক হয়ে ওঠে। এভাবেই এককালে চালু হয় পদ্ম-পায়ের চর্চা।
দাজির ভাষ্কর্য।
আরেক বর্ণনার জন্য ফিরে যেতে হবে ৯৬১ থেকে ৯৭৬ খ্রিষ্টাব্দ পর্যন্ত দক্ষিণ ট্যাং অঞ্চলের সম্রাট লি ইউয়ের কাছে। মূল্যবান পাথর ও মুক্তা দিয়ে সাজিয়ে তিনি প্রায় ৬ ফুট উঁচু পদ্মের ন্যায় এক মঞ্চ তৈরি করেছিলেন। এরপর তার উপপত্নী ইয়াও নিয়াংকে সাদা সিল্কের কাপড় দিয়ে তার পাগুলো অর্ধচন্দ্রাকৃতিতে বেঁধে সেই মঞ্চের উপর নাচতে বলেন তিনি। সেদিন নিয়াং এতটাই চমৎকারভাবে নেচেছিলেন যে উপস্থিত সকলের মুখ বিস্ময়ে হাঁ হয়ে গিয়েছিলো। এরপর তার দেখাদেখি রাজসভার অন্যান্য নারীরাও পা বাঁধার নতুন সেই চর্চা শুরু করে দেয়।
পা বাধছেন ইয়াও নিয়াং।
শুরুর দিকে চর্চাটি কেবল সমাজের উচ্চবিত্ত নারীদের মাঝে সীমাবদ্ধ থাকলেও কালক্রমে তা সকল শ্রেণীর নারীর মাঝেই ছড়িয়ে পড়ে। তবে কিছু কিছু প্রদেশের মানুষ (যেমন- মাঞ্চু ও দক্ষিণ চীনের গুয়াংডং থেকে আসা লোকেরা) এ প্রথাটির বিরোধীতা ঠিকই করেছিলো।

যেভাবে হলো এ অমানবিক প্রথার অবসানঃ

যদিও পা বাঁকিয়ে ফেলার পুরো প্রক্রিয়াটাই ছিলো বেশ অমানবিক। তারপরও চীনের নারী সমাজে এটা ছিলো বেশ সমাদৃত এবং পর আকাঙ্ক্ষিত এক চর্চা। দিন দিন তারা আরো ছোট, আরো বাঁকানো পায়ের পাতার সন্ধান করতে থাকায় একসময় পদ্ম-পাগুলোর পাতার দৈর্ঘ্য দাঁড়ায় মাত্র তিন ইঞ্চির মতো!

আঠারো শতক থেকে অমানবিক এ প্রথার বিরুদ্ধে আস্তে আস্তে জনমত তৈরি হতে থাকে। শেষ পর্যন্ত নানা সফলতা-বিফলতার গল্প লিখে ১৯১২ সালে সান ইয়াত-সেনের বিদ্রোহের পর চীনে এটি নিষিদ্ধ ঘোষণা করা হয়। এরপরও মোটামুটি ১৯৫০ সাল পর্যন্ত চীনা সংস্কৃতিতে টিকে ছিলো পদ্ম-পা

১৯৪৯ সালে কম্যুনিস্ট পার্টি ক্ষমতায় আসার পর দৃশ্যপট চূড়ান্তভাবে বদলাতে শুরু করে। তখন নারীদেরকে নানা ধরনের কঠিন পরিশ্রমের কাজ করতে হতো, যা পদ্ম-পায়ের নারীদের পক্ষে করা সম্ভব হতো না। এছাড়া সেই নারীদের পক্ষে অন্যদের মতো পাহাড় বেয়ে ওঠা সম্ভব হতো না । চাহিদামতো কাজ করতে না পারায় মাঝে মাঝেই তাদেরকে না খেয়ে দিন কাটাতে হতো। ফলে জীবিকার তাগিদেই নারীরা পদ্ম-পায়ের চর্চা থেকে সরে আসতে বাধ্য হয়।

পদ্ম-পা বানানোর পদ্ধতিঃ

এখন তাহলে চলুন এই পদ্ম-পা বানানোর পদ্ধতি সম্পর্কে জেনে নেয়া যাক।

সাধারণত একটি মেয়েশিশুর বয়স যখন চার থেকে সাত বছরের ভেতর থাকতো, তখন তার পা-কে পদ্মের ন্যায় আকৃতি দেয়ার কাজটি শুরু হয়ে যেত। কারণ তখন তাদের পায়ের হাড় তুলনামূলক নরম থাকায় তা সহজে বাঁকিয়ে পছন্দসই আকৃতি দেয়া সম্ভব ছিলো
পদ্ম পা।
প্রথমে মেয়েটির পা বেশ কিছু সময় ধরে কুসুম গরম পানিতে ডুবিয়ে রাখা হতো। এরপর পা থেকে মৃত চামড়া অপসারণ করা হতো। তারপর পায়ের আঙুলের নখগুলো যথাসম্ভব ছোট করে কাটা হতো এবং ঘাম হওয়া রোধ করতে আঙুলগুলোর মাঝে ফিটকিরি লাগানো হতো। এরপরই শুরু হতো বাঁধাবাঁধির আসল কাজ।
ব্যান্ডেজ বাঁধা পা।
২ ইঞ্চি প্রস্থ ও ১০ ইঞ্চি দৈর্ঘ্যের তুলার ব্যান্ডেজ গরম পানিয়ে ভিজিয়ে নেয়া হতো যেন শুকিয়ে গেলে তা সঙ্কুচিত হয়ে আসে। এ কাজগুলো সাধারণত মেয়েটির মা কিংবা গ্রামের কোনো অভিজ্ঞ মহিলা করতেন। এরপর বুড়ো আঙুল বাদে বাকি আঙুলগুলো পায়ের নিচে নিয়ে সেগুলো ব্যান্ডেজ দিয়ে বাংলা ‘৪’ এর মতো করে বাঁধা হতো। গোড়ালি আর বুড়ো আঙুল বাঁধা হতো না। এভাবে বেঁধে রাখার ফলে পায়ের নীচের অংশের হাড় একসময় ভেঙে যেত। বাঁধন যাতে শক্ত হয় এবং বাচ্চা মেয়েটি যাতে সেটি খুলতে না পারে সেজন্য ব্যান্ডেজের বিভিন্ন জায়গায় সেলাই করে দেয়া হতো। এবার বেশ ছোট একজোড়া জুতো পায়ে পরিয়ে মেয়েটিকে হাঁটতে বাধ্য করা হতো যা ছিলো অত্যন্ত যন্ত্রণাদায়ক এক ঘটনা
পদ্ম-জুতো।
একদিন বা দুদিন পরপর মেয়েটির পায়ের সেই ব্যান্ডেজ খুলে, পা ধুয়ে আবারো ব্যান্ডেজ লাগিয়ে দেয়া হতো। ধীরে ধীরে ব্যান্ডেজ শক্ত হতে শুরু করতো, ছোট হতে থাকতো জুতার আকৃতি। এভাবে প্রায় দু’বছর ধরে চলতো প্রক্রিয়াটি যতদিন না মেয়েটির পায়ের পাতা কাঙ্ক্ষিত অর্ধচন্দ্রাকৃতি ধারণ না করছে।

পুরো প্রক্রিয়ার সাথে জড়িয়ে ছিলো নানা বিপদের হাতছানি। যদি নখগুলো ঠিকমতো কাটা না হতো, তাহলে সেগুলো পায়ের নিচের অংশে কেটে ক্ষত তৈরি করতো। মাঝেমাঝেই গ্যাংগ্রিন হতো দুর্ভাগা সেই মেয়েটির। এমনকি সবকিছু ঠিকঠাক মতো হলেও মাঝেমাঝেই মেয়েটির পা ফুলে পুঁজ হয়ে বেশ খারাপ অবস্থা হয়ে যেত।
এক্স-রে’র নিচে একটি পদ্ম-পা।
ব্যাপারটা যদি পা-কে পছন্দসই আকৃতি দেয়ার মধ্য দিয়েই শেষ হতো, তাহলেও কথা ছিলো। কিন্তু দুঃখজনক হলেও সত্য যে, আজীবনই এর দেখাশোনা করতে হতো একজন নারীকে। নিয়মিতই গোসলের সময় জায়গাটি পরিষ্কার করে নতুন করে জায়গাটি ব্যান্ডেজ করতে হতো তাকে। নাহলে ধীরে ধীরে পা তার পূর্বেকার আকৃতি ধারণ করতো যা ছিলো একেবারে শুরুর দিকে পা বাঁকানোর মতোই যন্ত্রণাদায়ক
একটি স্বাভাবিক পা ও একটি পদ্ম-পা।

সমাজ জীবনে পদ্ম-পায়ের প্রভাবঃ

পদ্ম-পা দেখাচ্ছেন একজন চীনা নারী।
চীনা সমাজ জীবনে এই পদ্ম-পায়ের প্রভাব ছিলো সত্যিই চমকে দেবার মতো। একবার এর প্রচলন শুরু হবার পর মানুষজন স্বাভাবিক পা যুগলকেই বরং কুৎসিত হিসেবে দেখা শুরু করে দিলো! একজন মা কখনোই চাইবেন না তার সন্তান ব্যথায় কষ্ট পাক। তবে পদ্ম-পায়ের মতো দু’বছরব্যাপী এ কষ্টকর যাত্রার পথে নিজেদের মেয়েকে ঠেলে দিতে তারা বিন্দুমাত্র কুন্ঠাবোধ করতেন না। যদি কোনো মেয়ের পা এভাবে বাঁধা না হতো, তাহলে প্রতিবেশি অন্যান্য নারীদের হাসি-ঠাট্টার শিকার হতে হতো সেই মেয়েটিকে। সামাজিক অবস্থানের চেয়ে একজন নারীর পদ্ম-পায়ের সৌন্দর্য তার ভালো জায়গায় বিয়ের ব্যাপারে অধিক গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখতো!

স্ত্রীর উপর স্বামীর অধিক কর্তৃত্ব প্রতিষ্ঠা করতেও প্রত্যক্ষ ভূমিকা ছিলো বাঁকানো এ পায়ের। যেহেতু এ পা দিয়ে খুব বেশি হাঁটাচলা করা সম্ভব ছিলো না, তাই একজন মহিলা অধিকাংশ সময় ঘরেই কাটিয়ে দিতেন। ফলে ধীরে ধীরে স্বামীর উপর তিনি অত্যাধিক মাত্রায় নির্ভরশীল হয়ে পড়তেন। স্বামীর হাতে মার খেলেও দুর্ভাগা সেই নারীরা বাড়ি ছেড়ে যেতে পারতো না সাহায্যের খোঁজে

পদ্ম-জুতো আমাদের হাতের চেয়েও ছোট!

স্থাপত্যশিল্পের উপর প্রভাবঃ

তৎকালে চীনের স্থাপত্যের উপরও ছিলো এর বিশেষ প্রভাব। একজন নারীর পক্ষে সিঁড়ি বেয়ে উপরে ওঠা কষ্টকর হবে বিধায় চীনারা তাদের বাড়িগুলো একতলা করে বানানো শুরু করেছিলো। হাঁটাচলার সময় দেয়াল বা রেলিংয়ে ভর দিয়ে চলতে হতো বলে তাদের সড়ক ও গলিগুলোও হতো তুলনামূলক সংকীর্ণ

বাদ যায় নি যৌনতাওঃ

প্রাচীন চীনা সমাজ ব্যাবস্থায় বিকৃত এ পা-ই ছিলো পুরুষদের কাছে সর্বাপেক্ষা যৌনাবেদনময় অঙ্গ। স্ত্রীর সাথে মিলিত হবার আগে তারা অনেকক্ষণ ধরে কেবল তার সেই পায়েই হাত বুলিয়ে আদর করতো। কিং রাজবংশের সময়কালে একটি নির্দেশিকাও প্রকাশ করা হয়েছিলো এ বিষয়টি নিয়ে। সেখানে নারীদের পদ্ম পায়ে আদর করার ৪৮টি পদ্ধতি নিয়ে আলোচনা করা হয়েছিলো!
প্রাচীন চীনা নারীদের পদ্ম-পা সহ এমন ভঙ্গিমা আকৃষ্ট করতো তাদের পুরুষদের।
নারী শরীরের সেই বিকৃত পা-কে যদি শুধু যৌনাবেদনময় অঙ্গ বলা হয়, তাহলে ভুল বলা হবে। বরং এর আগে ‘সবচেয়ে’ শব্দটিও যোগ করতে হবে। কারণ প্রাচীন চীনের যৌনতা বিষয়ক নানা বইয়ে নারীদের এমন ছবি দেখা গেছে যেখানে তারা সারা শরীর উন্মুক্ত রাখলেও ঢেকে রেখেছে তার সেই ‘পদ্ম-পা। পায়ের বাঁধনগুলো নিয়ে তাদের এমনভাবে খেলা করতে দেখা যেতো যে, এখনই যেন তারা পাগুলো সবার সামনে দেখাতে যাচ্ছে, তবুও দেখাচ্ছে না!

একজন নারীকে এভাবে কষ্ট দেয়া একটি চর্চা কিভাবে হাজার বছর ধরে টিকে থাকলো আর কেনই বা নারীরা সেই ব্যাপারটিকে মেনে নিয়ে বরং এ থেকে দূরে সরে যেতে চাওয়া অন্যান্য নারীদের নিয়ে মজা করতো তা আসলেই আমার মাথায় ঢোকে না। শেষপর্যন্ত যে গত শতকের মাঝামাঝির দিকে অমানবিক এ সৌন্দর্য লাভের চর্চাটির অবসান ঘটেছে এটাই স্বস্তির বিষয়।