Showing posts with label বিজ্ঞান. Show all posts
Showing posts with label বিজ্ঞান. Show all posts

Wednesday, January 2, 2019

ডিপফেক টেকনোলজি : মিথ্যাকে সত্য বানিয়ে দেওয়া এক অভিশপ্ত প্রযুক্তি।

একটি দৃশ্য কল্পনা করুন। মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট হুট করে একটি সংবাদ সম্মেলন ডেকে বসলেন। সেখানে তিনি কৃষ্ণাঙ্গদের কটাক্ষ করে খুবই খারাপ একটা কথা বললেন। টিভি ও ইন্টারনেটের মাধ্যমে দ্রুত তা বিশ্বব্যাপী ছড়িয়ে পড়লো। এমন বর্ণবাদী মন্তব্যের জন্য সমগ্র আমেরিকার জনগণ ক্ষোভে ফেটে পড়েছে। তারা অবিলম্বে প্রেসিডেন্টের পদত্যাগ চায়। সাধারণ জনগণ রাস্তায় নেমে পড়েছে। জায়গায় জায়গায় পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে। রাষ্ট্রীয় সকল কর্মকাণ্ড স্থবির হয়ে রয়েছে।

অপরদিকে হোয়াইট হাউসে থাকা সকল কর্মচারীর মাথায় হাত। এমন কোনো সংবাদ সম্মেলন তো ডাকাই হয়নি। তাদের প্রেসিডেন্টও তো কোথাও এমন বক্তব্য দেননি। কিন্তু যে ভিডিওটি চারিদিকে ছড়িয়ে পড়েছে তা দেখেই বোঝা যাচ্ছে এটি প্রেসিডেন্ট নিজেই। একই চেহারা, একই গলার স্বর। এমনকি ভিডিওর ব্যাকগ্রাউন্ডেও অবিকল প্রেসিডেন্টের অফিস। প্রযুক্তি বিশ্লেষকরা অনেক চেষ্টা করেও এই ভিডিও যে নকল তা প্রমাণ করতে পারছে না। অপরদিকে বাইরে পরিস্থিতি ক্রমাগত খারাপ হতে চলেছে।

এবার আরেকটি দৃশ্য কল্পনা করুন। অন্যান্য দিনগুলোর মতোই স্বাভাবিকভাবে আপনার দিন কাটছিল। হঠাৎ কাছের একজন মানুষ ইন্টারনেটে আপনাকে একটি ভিডিও পাঠায়। ভিডিওটি চালু করার পর আপনি রীতিমতো আকাশ থেকে পড়লেন। এটি একটি অশ্লীল ভিডিও এবং ভিডিওর মানুষটি আপনি নিজেই। আপনার কাছে এটা একেবারে স্পষ্ট যে, এমন কোনো ভিডিওতেই আপনি নেই। কিন্তু ভিডিওর মানুষটি দেখতে অবিকল আপনার মতো। চোখ, নাক, হাসি, গলার স্বর হুবহু এক। এখন মানুষ কি আপনার কথা বিশ্বাস করতে চাইবে? আপনার আপনজনেরাই বা কীভাবে এর ব্যাখা করবে? খুব দ্রুত এই আপত্তিকর ভিডিও চারিদিকে ছড়িয়ে পড়ছে। পরিবার ও সমাজে আপনি মুখ দেখাতে পারছেন না। অথচ এখানে আপনার কোনো দোষই নেই।

ফটোশপ ও  অন্যান্য কিছু সফটওয়্যার আসার পর থেকে ইচ্ছামতো ও নিখুঁতভাবে নকল ছবি তৈরি করা যায়। তবে নকল ভিডিও বানানো অতটা সহজ ছিল না। ছবিতে একজনের মাথা কেটে অন্য জায়গায় বসানো যতটা সহজ, ভিডিওর ক্ষেত্রে তা ততটা সহজ নয়। কারণ মানুষের গলার আওয়াজ, অভিব্যক্তি, তাকানোর ধরন ইত্যাদি হুবহু নকল করা যেত না। এটি অসম্ভব ছিল একটি নতুন প্রযুক্তি আসার আগ পর্যন্ত।

ফটোশপ ব্যবহার করে নকল ছবি বানানো গেলেও নকল ভিডিও তৈরি করতে উচ্চমানের প্রযুক্তি দরকার।
নকল ভিডিও বানানোর এই প্রযুক্তির নাম ডিপফেক বা ডিপফেক টেকনোলজি। এই প্রযুক্তি ব্যবহার করে যেকোনো মানুষের হুবহু নকল ভিডিও বানানো সম্ভব। মেশিন লার্নিংয়ের প্রয়োগ ঘটানোর মাধ্যমে দিন দিন এই অভিশপ্ত প্রযুক্তিটি আরো নিখুঁতভাবে নকল ভিডিও তৈরি করতে সক্ষম হচ্ছে।


ডিপফেক আসলে কীভাবে কাজ করে?

ডিপফেক বলতে নকল ভিডিও বা অডিওকে বোঝায়। আপাতদৃষ্টিতে তা দেখতে আসল মনে হলেও তা মোটেই আসল নয়। ডিপফেক নামটির মাঝেই এর সংজ্ঞা নিহিত রয়েছে। ডিপ মানে গভীর এবং ফেক মানে নকল। অর্থাৎ ডিপফেক বলতে এমন কিছুকে বোঝায় যা খুবই গভীরভাবে নকল করা হয়েছে। মেশিন লার্নিং হলো ডিপফেক ভিডিও বানানোর প্রধান অস্ত্র। মেশিন লার্নিংয়ের একটি কৌশলের নাম "জেনারেল অ্যাডভারসেরিয়াল নেটওয়ার্ক" (GAN)। এর মাধ্যমে প্রথমে একজন ব্যক্তির বিভিন্ন অভিব্যক্তির হাজারখানেক ছবি সংগ্রহ করা হয়। এরপর সেই ছবিগুলো মেশিন লার্নিংয়ের মাধ্যমে প্রক্রিয়া করে তার মুখের সব ধরনের অভিব্যক্তির একটি সিমুলেশন তৈরি করা যায়। কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তার উত্তরোত্তর উন্নতির ফলে ব্যক্তির গলার আওয়াজও হুবুহু নকল করা সম্ভব। এসব ভিডিও ও অডিও নানাভাবে প্রক্রিয়া করে এমন একটি নকল ভিডিও তৈরি করা হয় যা খালি চোখে শনাক্ত করা অনেক কঠিন।
মুখমন্ডলের বিভিন্ন অভিব্যক্তি ধারণ করে মেশিন লার্নিং দিয়ে নকল ভিডিও বানানো হয়।
আমাদের দৃষ্টিসীমার পর্যায়কাল ০.১ সেকেন্ড। অর্থাৎ ১০০ মিলি সেকেন্ডের কম সময়ে ঘটে যাওয়া কোনো দৃশ্য আমাদের চোখে বাঁধবে না। কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তা দিয়ে তৈরি করা ভিডিওগুলোতে নানা ধরনের রূপান্তর ঘটে এর থেকেও কম সময়ে। তাই খালি চোখের পক্ষে আসল-নকলের যাচাই করা সম্ভব হয় না।

ডিপফেক টেকনোলজি দ্বারা সবচেয়ে বেশি ক্ষতিগ্রস্ত হয় রাজনীতিবিদ ও বিভিন্ন সেলিব্রিটিরা। এর কারণ তাদের নানা ভিডিও, ছবি ইত্যাদি ইন্টারনেটে বেশি সহজলভ্য। একজন অভিনেতার চেহারার বিভিন্ন ধরনের অভিব্যক্তি ইন্টারনেটে পাওয়া সবচেয়ে সহজ। তাই তারাই প্রথমে এই ক্ষতিকর প্রযুক্তির শিকার হয়।

ডিপফেক কতটা বিপজ্জনক? 

আধুনিক যুগ ইন্টারনেটের যুগ। আরো স্পষ্ট করে বলতে গেলে সোশ্যাল মিডিয়ার যুগ। একটা খবর সোশ্যাল মিডিয়ার মাধ্যমে যত দ্রুত মানুষের কাছে পৌঁছায়, অন্য কোনো মাধ্যম দ্বারা তা সম্ভব না। তাই বিভ্রান্তি ছড়ানোর জন্য এটি একটি উৎকৃষ্ট জায়গা। কোনো রকম সত্যতা যাচাই করা ছাড়াই খবর দ্রুত ছড়িয়ে পড়ে। গুজব সংবাদ দ্রুত মানুষের মুখে মুখে পৌঁছে যায়। মানুষের চিন্তাধারাকে নিয়ন্ত্রণ করার এর থেকে সহজ পন্থা আর নেই। আর এখানেই ডিপফেক টেকনোলজির জয়জয়কার।

ইন্টারনেটের বদৌলতে এখন মিথ্যা তথ্য খুব দ্রুত চারিদিকে ছড়িয়ে পড়ে।

ডিপফেক নিয়ে বিভিন্ন সময়ে বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ ব্যক্তি দুশ্চিন্তা প্রকাশ করেছেন। মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের ফ্লোরিডা অঙ্গরাজ্যের রিপাবলিকান সিনেটর মার্কো রুবিও এই টেকনোলজিকে পারমাণবিক অস্ত্রের সমতুল্য হিসেবে দাবী করেছেন। তিনি বলেছেন-
“তোমরা যদি মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রকে হুমকি দিতে চাও, তাহলে আগে তোমাদের দশটা এয়ারক্রাফট ক্যারিয়ার লাগতো, পারমাণবিক অস্ত্র লাগতো, লং রেঞ্জের মিসাইল লাগতো। কিন্তু আজ তোমাদের কেবল আমাদের ইন্টারনেট ব্যবস্থায় প্রবেশ করতে হবে, ব্যাংকিং ব্যবস্থায় অনুপ্রবেশ করতে হবে, বৈদ্যুতিক গ্রিডের উপর নিয়ন্ত্রণ প্রতিষ্ঠা করতে হবে। কিন্তু শুধু যে জিনিসটা করলেই হয়ে যায়, তা হলো তোমাদের একেবারে বাস্তবসম্মত নকল ভিডিও তৈরি করার ক্ষমতা থাকতে হবে। যেটা আমাদের নির্বাচনকে ক্ষতিগ্রস্ত করবে। অনেক প্রশ্নের সৃষ্টি করবে। দেশকে এক চরম সঙ্কটের মুখে ঠেলে দেবে।“
দ্য ওয়াল স্ট্রিট জার্নালের রিসার্চ ও ডেভেলপমেন্ট বিভাগের প্রধান ফ্রান্সেসকো মার্কোনি বলেছেন-
“পরবর্তী প্রজন্মের যত গুজব সংবাদ কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তা দ্বারা পরিচালিত হবে।“

কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তা আসল ও নকলের মাঝে সব ভেদাভেদ দূর করে দিতে সক্ষম।
এভাবে সামাজিক, রাজনৈতিক সকল ক্ষেত্রে এটি ব্যাপক প্রভাব বিস্তার করতে পারে। একটি সুখী দম্পতির মধ্যকার ভালোবাসা ও বিশ্বাস নিমেষে ভেঙে চুরমার করে দিতে পারে এই প্রযুক্তি। সৃষ্টি করতে পারে রাজনৈতিক অরাজকতা। কোনটি আসল আর কোনটি নকল তা নিয়ে এক বিশাল দ্বন্দ্ব দেখা দিবে মানুষের মনে। আর আপত্তিকর ভিডিও ছড়ানোর আশঙ্কা তো রয়েছেই।


কিছু বাস্তব উদাহরণঃ

রাজনৈতিক ঘটনা দিয়েই শুরু করা যাক। বর্তমান মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পকে সবাই চেনেন। নিজের নানা কুখ্যাত বক্তব্যের জন্য এমনিতেই তিনি অনেক জনপ্রিয়। ২০১৮ সালের মে মাসে তার একটি ভিডিও ইন্টারনেটে ছড়িয়ে পড়ে। তাতে তিনি বেলজিয়ামের নাগরিকদের সেই দেশের জলবায়ু পরিবর্তন ইস্যু নিয়ে উপদেশ দিয়েছেন। এই ভিডিওতে তার মুখের ভাষা ছিল খুব খারাপ। বেলজিয়ান জনগণ মার্কিন প্রেসিডেন্টের এমন আচরণ সহজভাবে নেয়নি। তারা টুইটারে প্রেসিডেন্ট ও আমেরিকা নিয়ে অনেক কটু কথা বলতে থাকে। এভাবে এক বিভ্রান্তিকর পরিস্থিতির সৃষ্টি হয়।
পরে জানতে পারা যায় যে, এটি একটি বেলজিয়ান রাজনৈতিক দলের কাজ। তারা একটি প্রোডাকশন স্টুডিওর সাহায্য নিয়ে এই নকল ভিডিও তৈরি করে। তাদের মূল উদ্দেশ্য ছিল জনগণের মনোযোগ আকর্ষণ করা, যাতে জলবায়ু পরিবর্তনের ব্যাপারে বেলজিয়ান সরকার গুরুত্বপূর্ণ পদক্ষেপ নেয়।

একটি বেলজিয়ান রাজনৈতিক দল তাদের টুইটার পেজে ডোনাল্ড ট্রাম্পের নকল ভিডিও পোস্ট করে।
এরকম আরো অনেক ঘটনা রয়েছে। সাবেক মার্কিন প্রেসিডেন্ট বারাক ওবামার কথাই ধরুন। তার একটি নকল ভিডিও রয়েছে যাতে তিনি সরাসরি ডোনাল্ড ট্রাম্পকে গালি দিয়েছেন। আগে থেকে বলে না দিলে এই ভিডিও যে আসল না নকল, তা কেউ আঁচ করতে পারবে না। তাহলে একটু চিন্তা করে দেখুন, এই প্রযুক্তি কোনো রাজনৈতিক অরাজকতা সৃষ্টি করতে কত বড় ভূমিকা রাখতে পারে।


উপরে বারাক ওবামার যে ভিডিওটি দেখানো হয়েছে তা আসলে চলচ্চিত্র পরিচালক জর্ডান পিলি ও বাজফিড ওয়েবসাইটের সম্মিলিত প্রয়াসে বের করা হয়। এই ভিডিওর মাধ্যমে তারা ডিপফেক টেকনোলজির খারাপ দিক সম্পর্কে সাধারণ জনগণকে হুঁশিয়ার করে দিয়েছেন।
মিডিয়া জগতে ডিপফেকের ব্যবহার অহঃরহ লেগেই আছে। সেলিব্রিটিদের আপত্তিকর ভিডিওর কথা তো আগেই বলা হয়েছে। চলচ্চিত্রেও এর ব্যবহার থেমে নেই। ইন্টারনেটে একসময় অভিনেতা নিকোলাস কেইজকে নিয়ে বেশ হাস্যরসের সৃষ্টি হয়। বিভিন্ন বিখ্যাত সিনেমার বিভিন্ন চরিত্রে আসল অভিনেতার জায়গায় তার মুখ বসিয়ে ভিডিও ইন্টারনেটে ছেড়ে দেওয়া হয়। এই মাথা কেটে বসানো ভিডিওগুলো ছিল অনেক নিখুঁত ও বাস্তবসম্মত।

ম্যান অফ স্টিল সিনেমায় অভিনেত্রী এমি এডামসের মুখের উপর নিকোলাস কেইজের মুখ বসানো হয়েছে।
'স্টার ওয়্যারস' খ্যাত অভিনেত্রী ক্যারি ফিশারকে অনেকেই চিনে থাকবেন। ২০১৬ সালে এই চলচ্চিত্র সিরিজেরই একটি প্রিকুয়েল “রৌগ ওয়ান” মুক্তি পায়। এই সিনেমার এক দৃশ্যে সিরিজের জনপ্রিয় চরিত্র প্রিন্সেস লিয়ার যুবতী সময়ের কিছু দৃশ্য প্রয়োজন ছিল। কিন্তু ক্যারি ফিশার তখন ষাট বছরে পা দিয়েছেন। তাই তার কম বয়সী সংস্করণ তৈরি করতে এই ডিপফেক প্রযুক্তির আশ্রয় নেওয়া হয়। উল্লেখ্য, সিনেমা মুক্তির একই মাসে ২৭শে ডিসেম্বর এই জনপ্রিয় অভিনেত্রী মৃত্যুবরণ করেন।


প্রযুক্তিবিদরা বিভিন্ন নকল শনাক্তকরণ পদ্ধতি নিয়ে গবেষণা করছেন।

ডিপফেক ভিডিও শনাক্ত করার জন্য ইতোমধ্যেই গবেষকরা উঠে পড়ে লেগেছেন। বিশেষভাবে বলতে হবে প্রফেসর হ্যানি ফরিদের কথা। ইউনিভার্সিটি অফ ক্যালিফোর্নিয়ার কম্পিউটার বিজ্ঞান বিভাগের এই প্রফেসর প্রায় বিশ বছর ধরে ডিজিটাল জালিয়াতি নিয়ে কাজ করছেন। তিনি এসব নকল ভিডিও শনাক্তকরণের জন্য নানা নতুন কৌশলের উদ্ভাবন করে চলেছেন। সাম্প্রতিক সময়ে এই পথে সাফল্যও অর্জন করেছেন। কথা বলার সময় মানুষের মুখমন্ডলে রক্তপ্রবাহের তারতম্য ঘটে। এটি মেশিন লার্নিং দিয়ে শনাক্ত করা যায় না। তিনি বর্তমানে এ ব্যাপারটি নিয়ে কাজ করছেন। তবে তিনি নিজে এখনো আশঙ্কামুক্ত নন। তার মতে, ডিপফেকের বিরুদ্ধে এসব ফরেনসিক টেকনোলজি বের করতে বছরের পর বছর সময় লেগে যায়। আর ডিপফেক টেকনোলজি প্রতিনিয়ত হালনাগাদ হচ্ছে। তাই এর শনাক্তকরণ পদ্ধতিগুলো গোপন রাখা জরুরী। দিন শেষে এগুলো ফাঁস হয়ে গেলে নকলবাজরা তা কাজে লাগাবে। এলগোরিদমে তাদের সামান্য পরিবর্তন পুরো বছরের শ্রম বৃথা করে দিতে পারে।

হ্যানি ফরিদ ২০ বছর ধরে ডিজিটাল জালিয়াতি শনাক্তকরণ প্রযুক্তি নিয়ে কাজ করছেন।
ইন্টারনেটের মাধ্যমের নানা গুজব ছড়ানো এখন নিত্যদিনের ব্যাপার। কোনটি সত্য ও কোনটি মিথ্যা তা নিয়ে জনগণ আগে থেকেই অনেক বিভ্রান্ত। তাই এমন অভিশপ্ত প্রযুক্তি যেন আরো শক্তিশালী হয়ে না ওঠে এবং দ্রুত এর প্রতিরোধ ব্যবস্থা গড়ে তোলা যায়, সেজন্য প্রযুক্তিবিদ ও গবেষকদের এগিয়ে আসতে হবে। ইতোমধ্যেই ফেসবুক এসব ডিপফেক ভিডিও শনাক্তকরণের জন্য কাজ করছে। অন্যান্য বিভিন্ন কোম্পানিও এ ব্যাপারে বেশ গুরুত্ব দিচ্ছে।

Tuesday, October 10, 2017

টিকটিকির লেজ পুনঃসৃষ্টির কৌশল আবিষ্কৃত।

প্রথমবারের মতো বিজ্ঞানীরা টিকটিকির লেজের পুনরায় সৃষ্টির সাথে জড়িত কোষগুলো সনাক্ত করেছেন। এর মাধ্যমে তাঁরা মানবদেহের স্নায়ুরজ্জু ক্ষতিগ্রস্থ হলে তা পুনঃরুৎপাদনের পদ্ধতি উদ্ভাবনে অগ্রগতির আশা করছেন। অটোটমি (Autotomy) নামক একটি প্রক্রিয়ায় কিছু টিকটিকিকে লেজ খসিয়ে ফেলার সক্ষমতা অর্জন করতে দেখা যায়। শিকারীর কাছ থেকে হুমকীর সম্মুখীন হলেই এ ঘটনাটি ঘটানো হয়। খসে পড়া লেজটি কিছুক্ষণ নড়তে থাকে, ফলে শিকারীর দৃষ্টি বিচ্যুত হয় এবং এই ফাঁকে টিকটিকি নিরাপদ স্থানে সরে যায়।

এটি সুনির্দিষ্টভাবে টিকটিকি বা গিরগিটির একটি বৈশিষ্ট্য। তবে কিছু প্রজাতির স্যালম্যান্ডারও এই ঘটনা ঘটিয়ে থাকে। লেজ খসানোর পর হতে গিরগিটির লেজটি পুরনায় বৃদ্ধি পাওয়া শুরু হয় এবং নতুন করে গজিয়ে যায়। গেকো নামক গিরগিটির ক্ষেত্রে এটি পুনরায় জন্মাতে ৩০ দিন সময় লাগে। অন্যান্য টিকটিকির ক্ষেত্রে সময় লাগে আরো কম।

বিজ্ঞানীরা, বিশেষ করে চিকিৎসা বিজ্ঞানের সাথে জড়িতরা এই ক্ষেত্রে যে বিষয়ে আগ্রহবোধ করেছেন তা হলো স্তন্যপায়ীর মতো টিকটিকির স্নায়ুরজ্জু পিঠেই শেষ হয়ে যায় না বরং লেজ পর্যন্ত বিস্তৃত থাকে। তার মানে হলো যখন টিকটিকি লেজ পুনর্জন্মানোর প্রক্রিয়া শুরু করে তখন সেই সাথে স্নায়ুরজ্জুও বৃদ্ধি পেতে হয়। ধুর্ত এই সরীসৃপগুলো কীভাবে স্নায়ুরজ্জু পুনরোৎপাদন করে, বিজ্ঞানীরা বিশেষভাবে সেই প্রক্রিয়াটি জানতে আগ্রহী।

অধ্যাপক ম্যাথু ভিকারিয়াস এই প্রসঙ্গটি এভাবে ব্যাখ্যা করেন,
"আমরা জানি গেকোর স্নায়ুরজ্জুর পুনোরুৎপাদন ঘটে। তবে আমরা জানতাম না কোন কোষগুলো এর পেছনে অবদান রাখে। মানুষ স্নায়বিক আঘাত নিয়ন্ত্রনে খুবই আনাড়ি। তাই আমি আশা করছি, গেকোর কাছ থেকে এই বিষয়ে কিছু শিখতে পারব যার মাধ্যমে মানুষের স্নায়ুরজ্জুর আঘাত নিজে নিজে নিরাময় করা যাবে।"
বিজ্ঞানীরা শিকারীর মতো আচরণ অণুকরণ করে গবেষণাগারে একটি লেপার্ড গেকোর লেজটি খসিয়ে দেন এবং কোষীয় পর্যায় কী ঘটনা ঘটে তা পর্যবেক্ষণ করেন। তাঁরা দেখতে পান গেকোর স্নায়ুরজ্জুতে রেডিয়াল গ্লিয়া নামক এক বিশেষ ধরনের স্টেম কোষ থাকে। এই কোষগুলো সব মেরুদন্ডী প্রানীর মধ্যেই পাওয়া যায় এবং প্রানীর প্রাথমিক স্নায়ুতন্ত্র গঠন করে। কিন্তু এরপরই নিশ্চুপ হয়ে যায়।

তবে যখন টিকটিকির লেজ খসে যায় তখন অন্য কোনো কিছুর প্রণোদনায় এরা আর নিশ্চুপ থাকে না বরং সক্রিয় হয়ে ওঠে। এরা নতুন কিছু প্রোটিন তৈরি করে এবং দ্রুত সংখ্যায় বৃদ্ধি পায়। ফল এক পর্যায়ে গিয়ে স্নায়ু রজ্জু মেরামত হয়ে যায়। শুধু যে লেজের স্নায়ুতন্ত্রই এরা মেরামত করতে পারে তা নয়, বরং অন্যান্য অংশের এমনটি কেন্দ্রীয় স্নায়ুতন্ত্র আঘাতপ্রাপ্ত হলেও টিকটিকি তা মেরামত করতে পারে। এই কারণেই বিজ্ঞানীরা বেশী উৎসাহবোধ করছেন।

Saturday, October 7, 2017

চীনের প্রথম মহাকাশ ষ্টেশন পৃথিবীতে আছড়ে পড়ে যাচ্ছে কয়েক মাসের মধ্যে।

প্রায় দশ টন ওজনের চৈনিক মহাকাশ স্টেশন টিয়াংগং-১ পৃথিবীর দিকে এর অবনমনের গতি ত্বরান্বিত করেছে এবং আগামী কয়েক মাসের মধ্যে পৃথিবীতে আছড়ে পড়বে বলে মনে করা হচ্ছে। যদিও পৃথিবীর চারদিকে পাক খেতে খেতে নামতে নামতে বায়ুমন্ডলের সাথে সংঘর্ষে ৪০ ফুট দৈর্ঘ্যের এই স্টেশনের অধিকাংশই পুড়ে ছাই হয়ে যাবে তবে প্রায় ১০০ কেজি ওজনের একটুকরো অবশেষ টিকে গিয়ে পৃথিবী পৃষ্ঠে পৌঁছাবে এবং এটি ঠিক কোথায় এসে আঘাত করবে তা কেউ জানে না।
চীনের প্রথম আন্তর্জাতিক মহাকাশ ষ্টেশন টিয়াংগং-১।
২০১১ সালে চীনের একটি মহাকাশকেন্দ্র উৎক্ষেপন করা হয় এবং এতে পরবর্তিতে তিনটি মহাকাশ অভিযান পরিচালনা করা হয় যার মাধ্যমে মহাশূন্যে অভিযাত্রা করেন চীনের প্রথম নারী নভোচারী লিউ ইয়াং এবং ওয়াং ইয়াপিং। স্টেশনের নামের অর্থ হলো ‘স্বর্গীয় প্রাসাদ’। এটি ২০২৩ সালে পরিকল্পিত বড়সড় মহাকাশকেন্দ্র উৎক্ষেপনের আগে একটি পরীক্ষামূলক উৎক্ষেপন হিসেবে দেখা হয়েছে।
পৃথিবীতে কিভাবে আছড়ে পড়তে পারে টিয়াংগং-১, তার কাল্পনিক চিত্র।
এটিকে কখনোই স্থায়ী করার চিন্তা করা হয় নি এবং ২০১৬ সালে চীনের সরকার এর সমাপ্তির সময় হয়ে এসেছে বলে ঘোষনা করে। চীনের কর্মকর্তাগণ স্বীকার করেন তাঁরা এর উপর নিয়ন্ত্রন হারিয়ে ফেলেছেন এবং এটি পাক খেতে খেতে পৃথিবীর কাছাকাছি চলে আসছে। সংশ্লিষ্টরা অনুমান করছেন এই স্টেশনটি অক্টোবর ২০১৭ হতে এপ্রিল ২০১৮ সালের মধ্যে কোনো এক সময় পৃথিবী পৃষ্ঠে এসে পৌঁছাবে। উল্লেখ্য কার্যক্ষম অবস্থায় এর উচ্চতা ছিলো ৩৭০ কিলোমিটার। পৃথিবী এবং মহাশূন্যের মাঝে যে সীমারেখা, সেই কারমান রেখার অবস্থান পৃথিবী পৃষ্ঠ হতে ১০০ কিলোমিটার উচ্চতায়।

Monday, July 17, 2017

এলিয়েনের আধুনিক উপকথা!

পৃথিবীর গণ্ডি পেরিয়ে মহাবিশ্বের কোনো গ্রহে কি আমাদের মতো প্রাণের অস্তিত্ব আছে? এই প্রশ্নটি বেশ আধুনিক। প্রাচীনকালের মানুষ কল্পনাও করতে পারেনি পৃথিবীর বাইরে প্রাণ থাকতে পারে। তখন বিজ্ঞানের উন্মেষ ঘটেনি তেমন। কিন্তু আশেপাশে রহস্যময় ঘটনা ঠিকই ঘটতো। সেসব ঘটনাকে তারা নিজেদের মতো করে ব্যাখ্যাও দিতো। সেই ব্যাখ্যাগুলো পরবর্তীতে ব্যাখ্যা হিসেবে গ্রহণযোগ্যতা হারিয়ে উপকথা বা পৌরাণিক কাহিনী হিসেবে স্থান করে নিয়েছিল মানুষের মাঝে। যতদূর জানা যায়, বহির্বিশ্বে প্রাণের অস্তিত্ব নিয়ে কোনো প্রাচীন উপকথা বা পুরাণ নেই। না থাকাটাই স্বাভাবিক ছিল। কারণ পৃথিবীর বাইরেও যে পৃথিবীর চেয়ে কোটি কোটি গুণ বেশি বড় একটি জগত আছে এটি সম্বন্ধে জানতোই না মানুষ। ভাবনাতেই আসেনি পৃথিবীর সমান বা তার চেয়ে বড় কোনো গ্রহের অস্তিত্ব আছে আকাশে।

আকাশকে তারা শুধুমাত্র তারা দিয়ে আঁকা বর্ণীল চাদর বলেই মনে করেছে। যেহেতু তাদের কল্পনা কিংবা বাস্তবতায় পৃথিবী ব্যতীত কোনো গ্রহের অস্তিত্ব ছিল না, তাই সেসব গ্রহে বিদ্যমান প্রাণ নিয়ে কোনো উপকথা বা পৌরাণিক গল্পও তৈরি হয়নি।
পৃথিবীর বাইরে প্রাণের অস্তিত্ব থাকতে পারে এমনটা কল্পনা করাও সম্ভব ছিল না একসময়।
১৫০০ সালের পরে মানুষ অনুধাবন করতে পেরেছিল পৃথিবীকে আমরা যেভাবে দেখি এটি আসলে তা না। আমরা হয়তো চোখ দিয়ে দেখতে পাচ্ছি সূর্য পৃথিবীর পূর্ব দিক থেকে উঠছে আর পশ্চিম দিকে অস্ত যাচ্ছে। কিন্তু সত্যিকার বাস্তবতা হচ্ছে পৃথিবী নিজে সূর্যের চারদিকে ঘুরছে। যার অর্থ হচ্ছে পৃথিবীর চেয়েও বড় জিনিসের অস্তিত্ব আছে। বড় ও ভারী জিনিসকে কেন্দ্র করেই ছোট ও হালকা জিনিসগুলো আবর্তন করে। সূর্য যেহেতু তার শক্তি দিয়ে পৃথিবীকে ঘোরাচ্ছে, তার মানে অবশ্যই সূর্যের ভর পৃথিবীর চেয়ে বড়। সীমাহীন এলাকাব্যাপী একটি গ্রহের চেয়েও বড় কিছুর অস্তিত্ব আছে এমনটা ভাবা তখনকার সময়ের জন্য আসলেই বৈপ্লবিক ছিল।


তখন পর্যন্ত সূর্য ও সূর্যের পরিবারের কিছু গ্রহ সম্বন্ধে জানা গিয়েছিল। কিন্তু সৌরজগতের বাইরেও যে অনেক অনেক নক্ষত্র আছে এবং কল্পনাতীত বিশাল গ্যালাক্সি আছে তা জানতে জানতে মানবজাতিকে আধুনিক যুগ পর্যন্ত অপেক্ষা করতে হয়। খুব বেশি দিন হয়নি, মানুষ তখনো বিশ্বাস করতো উপরের দিক সবসময়ই উপরে। পরবর্তীতে আবিষ্কার হলো পৃথিবী গোল। পৃথিবীর যে অংশটা আমাদের জন্য উপরে, একই অংশ হতে পারে অন্য কারো জন্য নীচে। আমরা বাংলাদেশীরা যদি নীচের দিক থেকে কোনো কিছু নির্দেশ করি সেটা হয়ে যাবে যুক্তরাষ্ট্রের উপরের দিক। মানুষ মনে করতো উপরের আকাশলোকে দেবতারা বসবাস করে, কিন্তু আদতে উপর বলতে কিছু নেই। আকাশ বলতে যে গম্বুজের মতো তারায় শোভিত দেয়াল দেখি, সেটাও আসলে কোনো দেয়াল নয়। দেখে মনে হয় তারাগুলো খুবই কাছাকাছি ঘেঁষে ঘেঁষে লেগে আছে, কিন্তু সত্যিকার অর্থে এক তারা থেকে আরেক তারার মাঝে বিলিয়ন বিলিয়ন কিলোমিটার দূরত্ব বিদ্যমান।

গম্বুজসদৃশ তারকাখচিত আকাশটি আসলে কোনো ‘আকাশ’ নয়।
পৃথিবীর স্বাভাবিক প্রাণের বাইরে বায়ুতে বা শূন্যে ভেসে বেড়ানো অদ্ভুত ধরনের সৃষ্টি বা অবাস্তব প্রাণ নিয়ে অনেক বিশ্বাস ও উপকথা আছে। যেমন- প্রেত, পিশাচ, অপদেবতা, মৃত আত্মা, ভূত ইত্যাদি। কিন্তু এসবের কোনোটিই বহির্জাগতিক কোনো গ্রহের প্রাণ নয়। উপকথা ও বিশ্বাস অনুসারে এরা আমাদের আশেপাশেই ঘুরে বেড়ানো সত্তা। কিন্তু এই লেখার প্রসঙ্গ সেগুলো থেকে ভিন্ন।


আদিম মানুষ বা বিচ্ছিন্ন আদিবাসীদের মধ্যে বহির্বিশ্বের প্রাণ নিয়ে কোনো উপকথা নেই। তবে উপকথা তো কোনো না কোনো কালের মানুষেরাই বানায়। আমাদের আজকের যুগের কোনো অন্ধবিশ্বাসও তো হতে পারে ভবিষ্যৎ প্রজন্মের কাছে হাস্যকর উপকথা। এলিয়েন বা ইউএফও সম্বন্ধে মানুষ যখন জানলো, তখন তাদেরকে ব্যাখ্যা করতে নানা কাহিনীর জন্ম দিয়ে দিল। যারা এসব কাহিনীর জন্ম দিয়েছে, তারা শিক্ষিত ও শহুরে নাগরিক। (বহির্বিশ্বের বুদ্ধিমান প্রাণকে ‘এলিয়েন’ বলা হয় এবং এসব এলিয়েন যেসব মহাকাশযানে করে ঘুরে বেড়ায় তাদেরক পৃথিবীবাসী ‘ইউএফও’ বলে থাকে।) মনগড়া ব্যাখ্যার পাশাপাশি তাদেরকে ঘিরে নানা ধরনের কাহিনীরও জন্ম দিয়ে দেয় পৃথিবীবাসীরা। এসব অবৈজ্ঞানিক নাটকীয় কাহিনীকে আমরা বলতে পারি ‘আধুনিক উপকথা’। আধুনিক উপকথা বা আধুনিক পুরাণগুলো একটি দিক থেকে আগ্রহোদ্দীপক। প্রাচীনকালের উপকথাগুলো কোন প্রেক্ষিতে কীভাবে জন্ম লাভ করেছিল তা আমরা জনতে পারি না। কিন্তু আধুনিক উপকথাগুলো সম্বন্ধে অনেক তথ্যই আমরা জানতে পারি। কারণ এসব ঘটনা ঘটেছে আমাদের চোখের সামনে। এসব ঘটনার প্রেক্ষিত, কারণ, পূর্বে এরকম ধারণার রূপ কেমন ছিল তার সবই আমাদের জানা আছে।


এমনকি এসব গল্পের জন্ম দিয়েছে যেসব লোকেরা আমরা চাইলে তাদের সাথে কথাও বলতে পারি। তারা এখনো জীবিত আছে। তারা তখন ঘোরের মধ্যে এসব করেছিল, নাকি কোনো বিশ্বাস থেকে করেছিল, নাকি নিজের অজান্তেই করেছিল তা-ও আমরা জানতে পারি তাদেরকে জিজ্ঞেস করে। এমনকি তারা তখন যে অবস্থায় ছিল তার চিকিৎসা সংক্রান্ত বিভিন্ন মেডিকেল রিপোর্টও জানতে পারি।

১৯৯৭ সালে যুক্তরাষ্ট্রের ক্যালিফোর্নিয়ার একটি ঘটনা। ‘হেভেন্স গেইট’ নামে একটি ধর্মীয় গোষ্ঠীর ৩৯ জন সদস্য স্বেচ্ছায় বিষ খেয়ে বসলো । তারা বিশ্বাস করেছিল বহির্বিশ্বের কোনো এক UFO তাদের সকলের আত্মা অন্য একটি গ্রহে নিয়ে যাবে। তাই তারা আত্মহত্যা করে পৃথিবীর জীবন সাঙ্গ করে ঐ গ্রহে রওনা দেয়। ঐ সময়ে পৃথিবী থেকে একটি ধূমকেতুকে দেখা যাচ্ছিল এবং এটি বেশ প্রকট ও উজ্জ্বল ছিল। ধর্মীয় ঐ গোষ্ঠীটি মনে করেছিল এর পাশে কোনো UFO আছে বলে এমন উজ্জ্বল দেখাচ্ছে একে। এমন ধারণায় তারা সকলে বিশ্বাস করেছিল, কারণ তাদের আধ্যাত্মিক নেতা এমন কথা বলেছিল।
আত্ম হন্তারকদের দুটি দেহ।

হ্যাভেনস গেটের গণ আত্মহত্যা (গাড়ির ভেতর সাদা কাপড়ে মোড়ানো লাশগুলো দ্রষ্টব্য)।
ধূমকেতুটিকে পর্যবেক্ষণ করার জন্য একটি টেলিস্কোপও কিনে এনেছিল তারা। কিন্তু পরবর্তীতে তা দোকানে ফেরত দিয়ে দেয়। ফেরত দিতে গিয়ে অভিযোগ দেয় টেলিস্কোপটি ভালো না, ঠিকমতো কাজ করে না। তারা কীভাবে জানলো যে টেলিস্কোপটি নষ্ট? তারা এর মধ্য দিয়ে কোনো UFO’র দেখা পায়নি। যেহেতু তারা এলিয়েনদের মহাকাশযান UFO দেখতে পায়নি, তাই গায়ের জোরে ধরে নিয়েছিল যে টেলিস্কোপটি নষ্ট!


আধ্যাত্মিক নেতাও কি এরকম ধারণায় বিশ্বাস করেছিল? এ ধরনের ধর্মীয় ঘটনাগুলোয় নেতারা সবসময় অক্ষত থাকে। ভোগান্তিগুলো ভোগে অনুসারীগুলো। কিন্তু এখানে সম্ববত আধ্যাত্মিক নেতাটি বহির্জাগতিক স্বর্গীয় প্রাণের ধারণায় বিশ্বাস করেছিল। কারণ তিনি নিজেও আত্মহত্যার জন্য বিষ গ্রহণ করেছিলেন। আধ্যাত্মিক নেতা 'মার্শাল অ্যাপলহোয়াইট' অন্য কয়েকজন অনুসারীর সাথে নিজের পুরুষাঙ্গ কেটে খোজা হয়ে গিয়েছিল। পুরুষাঙ্গ কেটে ফেললে নারীর সাথে যৌনকর্মে লিপ্ত হওয়া রোধ হয়ে যায় এবং তারও অপর নারীর প্রতি কোনো যৌন আকর্ষণ থাকে না। ফলে মন কলুষিত হয় না। মন যত পরিষ্কার থাকবে তাদের অর্চনা করা স্রষ্টার সান্নিধ্য তত বেশি পাবে! এ থেকে বোঝা যায় তার ও তার কিছু অনুসারীর চিন্তাভাবনা কতটা অন্ধ ছিল। এমন অন্ধ বিশ্বাসের উপস্থিতিতে তারা যে সবাই একত্রে বিষ নিয়ে অন্য কোনো স্বর্গীয় গ্রহে চলে যেতে চাইবে, তা আর অবাক করার মতো কী?

মার্শাল আপলহোয়াইট, যার প্রেরণায় আত্মহত্যা করেছিল ৩৯ জন। এমন কর্মের জন্য তিনি টাইম, নিউজউইক সহ অন্যান্য ম্যাগাজিনের প্রচ্ছদে স্থান করে নিয়েছিলেন।
যারা এলিয়েন সংক্রান্ত কোনো দাবী বা অদ্ভুত কর্মকাণ্ড ঘটিয়ে থাকে, তাদের সবার মধ্যে একটি জিনিসে মিল পাওয়া যায়। এলিয়েন সংক্রান্ত উদ্ভট দাবী যারা করে, তাদের প্রায় সকলেই সায়েন্স ফিকশনের ভক্ত। হয় সেটি কোনো সায়েন্স ফিকশন বই, নাহয় সেটি কোনো সায়েন্স ফিকশন চলচ্চিত্র। হেভেন্স গেইট নামের ধর্মীয় গোষ্ঠীটির সদস্যরা ‘স্টার ট্রেক’ সিরিজের প্রতি আচ্ছন্ন ছিল।


হ্যাঁ, এটা সত্য যে, ভিন গ্রহের প্রাণী নিয়ে এই পৃথিবীতে সায়েন্স ফিকশনের কোনো অভাব নেই। মূল কথা হচ্ছে অনেক অনেক সায়েন্স ফিকশনের অস্তিত্ব থাকলেই যে এ সংক্রান্ত দাবী সত্য হয়ে যাবে এমন কোনো কথা নেই। সকল ধরনের সায়েন্স ফিকশনই কাল্পনিক। যারা এগুলো পড়ে, তারাও জানে এবং যারা এগুলো লেখে, তারাও জানে। সবগুলোই মানুষের মস্তিষ্কের ভেতর তৈরি করা গল্পের প্লটের উপর দাঁড়িয়ে আছে। এদের কোনোটিই বাস্তবে ঘটেনি। তারা শুধুই গল্প। অনেকটা আমাদের বাংলা ছড়ার হাট্টিমাটিম টিমের মতো কাল্পনিক প্রাণী।

এলিয়েনে আচ্ছন্ন ব্যক্তিরা স্টার ট্রেক জাতীয় সায়েন্স ফিকশনের ভক্ত।
এরপরেও অনেকে ধারণা করে এবং মনে-প্রাণে বিশ্বাস করে যে, এলিয়েনদের সাথে ব্যক্তিগতভাবে তাদের দেখা হয়েছে। তাদের কেউ কেউ দাবী করে এলিয়েনরা তাদেরকে অপহরণ করে নিয়ে গিয়েছিল। অনেকে অনেকভাবে বোঝানোর চেষ্টা করলেও তাদের বিশ্বাসে তারা একদম অনড় থাকে। তাদের দাবীকে সত্য বলে প্রতিষ্ঠা করার জন্য যুক্তিহীন তথ্য বা সাক্ষ্য উপস্থাপন করে।


একজন লোকের নাক দিয়ে রক্ত ঝরতো। লোকটি দাবী করেছিল তার এই সমস্যার জন্য দায়ী কোনো এলিয়েন প্রাণী। এর সত্যতা প্রতিষ্ঠার জন্য মনগড়ামতো ব্যাখ্যাও দিয়েছিল। তার দেয়া ব্যাখ্যা অনুসারে এলিয়েনরা তার নাকের ভেতর একটি রেডিও ট্রান্সমিটার বসিয়ে দিয়েছে, যার কারণে রক্ত ঝরছে। রেডিও ট্রান্সমিটার বসানোর কারণ, এর সাহায্যে এলিয়েনরা তার উপর গোয়েন্দাগিরি তথা বৈজ্ঞানিক নজরদারি করতে পারবে। উল্লেখ্য রেডিও ট্রান্সমিটারের মাধ্যমে এক স্থান থেকে আরেক স্থানে তার ছাড়াই তথ্য আদান প্রদান করা যায়। মোবাইল এরকমই একটি যন্ত্র।


লোকটির এমন ধারণাও ছিল, সে নিজেও একজন এলিয়েন! কীভাবে জানলো এই কথা? তার বাবা-মা ছিল ফর্সা, কিন্তু সে কিছুটা কালো। বাবা-মা ফর্সা হলে তো সে নিজেও ফর্সা হবার কথা ছিল। যেহেতু লোকটি তার বাবা-মায়ের মতো না, সেহেতু সে একজন এলিয়েন বা এলিয়েনের বংশধর! উদ্ভট যুক্তি।
আমেরিকায় এমন ঘটনার দিকে তাকালে অনেকটা অবাকই হতে হবে। আমেরিকানদের অনেকেই বিশ্বাস করে উন্নত প্রযুক্তির অধিকারী এলিয়েনরা তাদেরকে ধরে UFO-তে নিয়ে গিয়েছিল এবং সেখানে তার উপর ভয়ানক বৈজ্ঞানিক পরীক্ষা নিরীক্ষা করা হয়েছিল। অর্থাৎ তারা এলিয়েনদের পৈশাচিক সায়েন্টিফিক এক্সপেরিমেন্টের ভুক্তভোগী বা ভিক্টিম। যে এলিয়েনরা ধরে নিয়ে গিয়েছিল, তারা দেখতে কেমন ছিল তার বর্ণনাও পাওয়া যায় তাদের কাছে। বেশিরভাগ মানুষই দাবী করে অপহরণকারী এলিয়েনদের গায়ের রঙ নীল, মস্তিষ্ক (মাথা) বেশ বড়, চোখগুলো বেশ বিস্তৃত। এলিয়েন নিয়ে এ ধরনের কাহিনীগুলো যদি একত্র করা হয়, তাহলে তা অনেক রংচঙে ও রসালো আকার ধারণ করবে। এই কাহিনীগুলো এমনকি সকল গ্রিক পুরাণ, মিশরীয় পুরাণ, নর্স পুরাণকেও হারিয়ে দেবে।
তাদের দাবী, এলিয়েনরা ধরে নিয়ে তাদের উপর এক্সপেরিমেন্ট করেছিল।
তবে আশার কথা হচ্ছে এলিয়েনের উপকথাগুলো সাম্প্রতিক। কেউ এই ব্যাপারে আগ্রহী হলে তাদেরকে নিয়ে গবেষণা করতে পারে এবং অনুসন্ধান করে দেখতে পারে আসলেই এর পেছনের কারণ কী ছিল। কেউ চাইলে এসব ভুক্তভোগীদের সাথে কথা বলে তাদের অপহরণ সম্পর্কে আরো বিস্তারিত জেনেও নিতে পারবে।


কেউ যদি এই কাজটি করতে যায় তাহলে দেখতে পাবে, একদমই সুস্থ ও সস্বাভাবিক মস্তিষ্কের মানুষ এরকম দাবীগুলো করছে। তারা নিখুঁতভাবে বর্ণনা দেবে UFO-র ভেতরে কীভাবে তাদেরকে নিয়ে এক্সপেরিমেন্ট করা হয়েছিল, কীভাবে তাদের শরীর কেটে-ছিড়ে ফেলা হয়েছিল, কীভাবে এলিয়েনরা নিজেদের মধ্যে কথা বার্তা বলছিল তার সবই। তাদের সকল মানুষের বেলাতেই এলিয়েনরা ইংরেজিতে কথা বলে! যেহেতু আমেরিকানরা ইংরেজিভাষী, তাই এরা ইংরেজি ছাড়া অন্য কোনো ভাষা বুঝতে পারবে না। অন্য কোনো ভাষাতেও যে এলিয়েনরা কথা বলতে পারে কিংবা এলিয়েনদের নিজস্ব ভাষাতেও যে কথা বলতে পারে এই ধারণা তাদের কল্পনায় তখন ছিল না।


সুসান ক্ল্যানসি নামে একজন মনোবিজ্ঞানী এরকম মানুষদের নিয়ে অনেক গবেষণা করেছিলেন। এলিয়েন তাদেরকে ধরে নিয়ে গিয়েছিল, এরকম দাবীদার মানুষের অনেকেরই ধরে নিয়ে যাবার ঘটনা সম্পর্কে পরিষ্কার স্মৃতি মনে নেই। কারো কারো বেলায় অল্প স্বল্প আছে, আর কারো কারো বেলায় একদমই নেই। সুসান ক্ল্যানসি দেখেছেন এলিয়েন কর্তৃক অপহরণের স্মৃতি যাদের তেমন মনে নেই তারা প্রায় সকলেই দাবী করছে, এলিয়েনরা তাদের কোনো উন্নত প্রযুক্তি ব্যবহার করে তার দেহে করা এক্সপেরিমেন্ট সংক্রান্ত সকল স্মৃতি মুছে দিয়েছে। মাঝে মাঝে এরকম রোগীদের সম্মোহনবিদ বা সাইকোথেরাপিস্টের কাছেও যেতে দেখা যায়। তাদের ধারণা উপযুক্ত থেরাপি বা সম্মোহনের মাধ্যমে তারা তাদের হারিয়ে যাওয়া স্মৃতি ফিরিয়ে আনতে পারবে।
The 3 Sins of Memory শিরোনামে টেড টকে বক্তব্যরত মনোবিজ্ঞানী সুসান ক্ল্যানসি।
হারিয়ে যাওয়া স্মৃতি পুনরুদ্ধার করার ব্যাপারটি একদমই ভিন্ন তল্লাটের গল্প। স্নায়ুবিজ্ঞানের এই প্রক্রিয়াটি বেশ চমকপ্রদ। তবে চমকপ্রদ হলেও এলিয়েনদের দ্বারা স্মৃতি হারিয়ে ফেলা ও উদ্ধার করার সাথে এর কোনো সম্পর্ক নেই। কেউ যদি কোনো একটি কাল্পনিক বিষয় নিয়ে খুব বেশি মগ্ন থাকে, তাহলে মাঝে মাঝে মনে হতে পারে কাল্পনিক কোনো কিছু বুঝি আসলেই তার জীবনে হয়েছিল। তেমনই সায়েন্স ফিকশন নিয়ে কেউ যদি রাত-দিন মত্ত থাকে, তাহলে ক্ষেত্রবিশেষে মনে হতে পারে সায়েন্স ফিকশনের কোনো কোনো ঘটনা তার জীবনেও ঘটেছে। এক্ষেত্রে এগুলোকে বলা যায় মিথ্যা স্মৃতি বা False Memories।


এখনকার চিকিৎসা প্রযুক্তি ব্যবহার করে বাইরে থেকে এ ধরনের মিথ্যা স্মৃতি মানুষের মস্তিষ্কে প্রবেশ করানো সম্ভব । জীবনে সত্যি সত্যি ঘটে যাওয়া স্মৃতি থেকে এটি একদমই ভিন্ন। তাই কেউ যদি সম্মোহনবিদ বা সাইকোথেরাপিস্টের কাছে যায় স্মৃতি উদ্ধারের জন্য, তাহলে তারা বড়জোর মিথ্যা স্মৃতি দিতে পারবে, সত্যিকার ঘটে যাওয়া স্মৃতি উদ্ধার করতে পারবে না।

কিছু কিছু মানুষ কেন দৃঢ়ভাবে বিশ্বাস করে যে তাদেরকে এলিয়েন অপহরণ করেছিল, তা মিথ্যা স্মৃতি সিনড্রোমের মাধ্যমে ব্যাখ্যা করা সম্ভব। এ ধরনের ব্যক্তিরা স্টার ট্রেক বা স্টার ওয়ার্স ধাঁচের সায়েন্স ফিকশন চলচ্চিত্রে অনেক বেশি মত্ত থাকে। তাদের সমসাময়িক সায়েন্স ফিকশনে যে যে ঘটনা ঘটে, তারাও সেরকম অভিজ্ঞতাই পায় এলিয়েনদের কাছ থেকে। তারা যে যে ঘটনার দাবী করে, সেগুলোর অধিকাংশই টেলিভিশনে প্রচারিত কোনো নাটক বা চলচ্চিত্রের সাথে মিলে যায়।
কাল্পনিক ব্যাপারকে বাস্তব স্মৃতি বলে বিশ্বাস করে কেউ কেউ।
ঘুম জড়তা বা 'Sleep Paralysis' নামে আরো একটি ব্যাপার আছে। কেউ ঘুম জড়তায় পড়লে দেহের কোনো অঙ্গ নড়াচড়া করতে পারে না। কেউ যখন স্বপ্ন দেখে বা ঘুমায় তখন ক্ষণস্থায়ীভাবে তার দেহ স্থবির হয়ে যায়। স্বপ্নে বা ঘুমে প্রয়োজন পড়লে অনেক কষ্ট করেও হাত-পা নাড়ানো যায় না কিংবা চিৎকারও দেয়া যায় না।


অনেকেরই এমন হয়। ঘুম যখন ভাঙে, তখন জড়তা চলে যায় এবং দেহ ধীরে ধীরে স্বাভাবিক হয়ে যায়। তবে কিছু কিছু ক্ষেত্রে দেহ স্বাভাবিক হতে সামান্য সময় লাগে। এমতাবস্থায় সে জাগ্রত আছে এবং আশেপাশের সকল কিছু দেখতে পাচ্ছে, কিন্তু তার কোনো অঙ্গ নাড়াতে পারছে না। ব্যাপারটা এক দিক থেকে ভয়ানক, কারণ এই সময়টাতে অনেকে কাল্পনিক ভ্রান্তি বা হ্যালুসিনেশনে ভোগে। সায়েন্স ফিকশনে আচ্ছন্ন কোনো লোক যদি এই পরিস্থিতিতে পড়ে, তাহলে স্বাভাবিকভাবেই সায়েন্স ফিকশন সংক্রান্ত কোনো হ্যালুসিনেশনে সে পড়ে যাবে। ভাববে বুদ্ধিমান কোনো প্রাণী তাকে হাতে পায়ে বেঁধে রেখেছে যেন নড়াচড়া করতে না পারে। এবং আরো ভাববে তাকে নিয়ে বুঝি ভয়ঙ্কর সব পরীক্ষা নিরীক্ষা করা হচ্ছে।


এটা বেশ খারাপ ভ্রান্তি। কল্পনা বা স্বপ্ন হলেও তা কোনো কারণে মনে গেঁথে যায়। এক পর্যায়ে তারা এটাকে বাস্তব বলে ধরে নেয় এবং এর স্মৃতিকে সত্যিকার স্মৃতি বলে মনে করে।
ঘুম জড়তায় পড়লে নড়াচড়া করা যায় না। চিত্রকর: Henry Fuseli (দ্য নাইটমেয়ার)।
একটা ব্যাপার এখানে উল্লেখযোগ্য, সায়েন্স ফিকশনের গল্পগুলো জনপ্রিয় হবার আগেও এ ধরনের সমস্যা বিদ্যমান ছিল। তখনকার সময়ে যারা এরকম সমস্যায় পড়তো তারাও মিথ্যা স্মৃতিকে সত্য বলে মনে করতো। তবে সেগুলো এলিয়েনকে নিয়ে নয়, ভূত-প্রেত-পিশাচ বা অশুভ মৃত আত্মাকে নিয়ে। আজকালকার যুগের হরর সিনেমাগুলো যেমন হয় অনেকটা তেমন। তারা মানুষের কাছে বর্ণনা করতো, একটি মায়া নেকড়ে বা একজন রক্তচোষা মানুষ এসে তাদের ঘাড়ে কামড় দিয়ে রক্ত চুষে খেয়ে গেছে। কেউ কেউ আবার দাবী করতো ডানাওয়ালা অত্যন্ত সুন্দর পরী এসে তাদেরকে সঙ্গ দিয়ে গেছে। কেউ যদি ভ্যাম্পায়ার বা মায়া নেকড়ের গল্পকাহিনীতে বুদ হয়ে থাকে এবং তার যদি ঘুম জড়তা বা স্লিপ প্যারালাইসিস হয়, তাহলে স্বাভাবিকভাবেই সে ঘুম থেকে উঠে মনে করবে রাতে কোনো রক্তচোষা মনে হয় তাকে আক্রমণ করেছিল। কেউ যদি এলিয়েন, স্পেস শিপ, নাক্ষত্রিক ভ্রমণ নিয়ে মগ্ন থাকে, তাহলে সে সেই সংক্রান্ত বিষয় দেখতে পাবে এবং তা-ই সত্য বলে বিশ্বাস করবে।

এক্ষেত্রে আরো একটি ক্ষতিকর ব্যাপার হচ্ছে ভুক্তভোগীর পরিবার ও বন্ধুবান্ধব। কেউ যখন ভাসাভাসা স্মৃতি নিয়ে এলিয়েনদের কথা উপস্থাপন করে, তখন পরিবারের সদস্য বা বন্ধু-বান্ধবরা একের পর এক প্রশ্ন করতে থাকে। এলিয়েনের উচ্চতা কেমন ছিল, গায়ের রঙ কেমন ছিল, চোখ কয়টা ছিল, নাক আছে কিনা, মাথায় চুল আছে কিনা, এরা কি দেখতে মুভি-সিনেমার এলিয়েনের মতো ইত্যাদি ইত্যাদি। কৌতূহলের কোনো শেষ নেই। এমন প্রশ্নের বানে পড়ে তারা তাদের বিশ্বাসের সাথে কল্পনা মিশিয়ে ব্যাপারটাকে আরো ঘোলাটে করে ফেলে। এরকম উল্টাপাল্টা প্রশ্নের কারণেও ব্যক্তির মস্তিষ্কে মিথ্যা স্মৃতি প্রবেশ করতে পারে এবং তা স্থায়ী হয়ে যেতে পারে।
চোখ কয়টা, নাক কেমন, মাথায় চুল আছে কিনা, পেছনে লেজ আছে কিনা!
এই প্রেক্ষাপট থেকে দেখলে এটা জানলে মনে হয় খুব বেশি অবাক লাগবে না যে, ১৯৯২ সালে আমেরিকার এক জরিপ থেকে দেখা যায়, আমেরিকার প্রায় চার মিলিয়ন মানুষ মনে করে বহির্জাগতিক কোনো বুদ্ধিমান এলিয়েন তাদেরকে অপহরণ করে নিয়ে গিয়েছিল। বাংলাদেশে এরকম হাইটেক-ফ্যান্টাসিগুলো খুব একটা জনপ্রিয় নয় বলে আমেরিকার মতো এরকম ঘটনা খুব বেশি দেখা যায় না। তারপরেও খোঁজ করলে অল্প বিস্তর ঠিকই পাওয়া যায়। ঔপন্যাসিক হুমায়ুন আহমেদ তার কোনো একটি স্মৃতিকথায় এরকম একটি ঘটনার কথা বলেছিলেন। হুমায়ুন আহমেদের লেখা কোনো একটি সায়েন্স ফিকশন পড়ে এক মেয়ে দাবী করছে সে একই সাথে দুই জগতে বসবাস করছে।


মনোবিজ্ঞানী 'সু ব্ল্যাকমোরের' মতে ঘুম জড়তায় ঘটে যাওয়া ঘটনাগুলো মূলত মস্তিষ্কে কোনোকিছু নিয়ে পূর্ব থেকে স্থায়ী হয়ে থাকা ভয় বা শংকা থেকে হয়। এলিয়েনদের ধারণা জনপ্রিয় হবার আগে মধ্যযুগে এই ভয়গুলো ছিল ভ্যাম্পায়ার বা অশুভ আত্মা কেন্দ্রীক। মধ্যযুগে অনেক নারী অভিযোগ করেছিল একজন পুরুষ পিশাচ রাতের বেলা ঘুমের মধ্যে তাদের সাথে যৌনকর্ম করেছে। আবার অনেক পুরুষও অভিযোগ করেছে রাতে ঘুমন্ত অবস্থায় একজন নারী পিশাচ তাদের সাথে যৌনকর্ম করেছে। এরকম মুহূর্তে মনে হয় কোনো এক অশুভ পিশাচ বুকের উপরে এমনভাবে চেপে বসেছে যে কোনোভাবেই নড়াচড়া করা সম্ভব হয় না।


নিউফাউন্ডল্যান্ডের উপকথায় আছে ‘ওল্ড হ্যাগ’ নামে একটি সত্তা রাতের বেলায় মানুষের ঘরে আসে এবং তাদের বুকের উপর ভর করে বসে থাকে, ফলে নড়াচড়া করা সম্ভব হয় না। ইন্দোচীন এলাকার উপকথায় ‘ধূসর ভূত’ নামে একটি সত্তা আছে। এটি রাতের অন্ধকারে ঘুমন্ত মানুষের উপর চেপে বসে থাকে এবং তাদেরকে নড়াচড়ায় অক্ষম করে দেয়। বাংলাদেশেও এরকম সত্তা আছে। বাংলাদেশীরা একে ‘বোবায় ধরা’ নামে ডাকে। এখানের সবগুলোই ঘুমের জড়তার কারণে হয়। কোনোটিতেই কেউ বুকের উপর এসে শ্বাস চেপে বসে থাকে না।
বোবায় ধরা’তে কেউ বুকের উপর চেপে বসে না।
আশা করি আলোচনা থেকে আমরা পরিষ্কার হতে পেরেছি, কেন মানুষ ভুলভাবে মনে করে তাদেরকে এলিয়েনরা ধরে নিয়ে গিয়েছিল কিংবা কেন মানুষ মনে করতো ভ্যাম্পায়াররা তাদের ঘাড় থেকে রক্ত চুষে খেয়ে নিয়েছে। এখন পর্যন্ত এমন কোনো তথ্য বা প্রমাণ নেই যে পৃথিবীতে এলিয়েন এসেছিল কিংবা পৃথিবীর বাইরে এলিয়েনের অস্তিত্ব আছে। এলিয়েনের পাশাপাশি ভূত বা অশুভ আত্মার অস্তিত্ব সম্পর্কেও কোনো তথ্য-প্রমাণ নেই।


কিন্তু তারপরেও প্রশ্ন থেকে যায়। পৃথিবীর বাইরে অন্যান্য নক্ষত্র বা গ্যালাক্সিতে অনেক অনেক বাসযোগ্য গ্রহ রয়েছে এবং এগুলোর মধ্যে প্রাণের অস্তিত্ব থাকার সম্ভাবনা একদমই উড়িয়ে দেয়া যায় না। তারা এখনো পৃথিবীতে ভ্রমণ করেনি কিংবা তাদেরকে আমরা এখনো দেখিনি বলে তার মানে এই নয় যে তাদের কোনো অস্তিত্ব নেই। এমনও হতে পারে যে, তারা ঠিকই আছে, কিন্তু আমাদের প্রযুক্তিগত সীমাবদ্ধতার কারণে আমরা তাদেরকে দেখতে বা শনাক্ত করতে পারছি না।


তবে তাদেরকে শনাক্ত করতে পারছি না বলে ইচ্ছে মতো কাল্পনিক গল্প ফেঁদেও বসা উচিৎ নয়। কোনোকিছু প্রমাণিত হলে তবেই তাকে নিয়ে খবর প্রচার করা উচিৎ এবং সত্যতার পক্ষে দাবী করা যায়। ঘুমের মধ্যে ধরে নিয়ে গেছে, বেহুশ করে নিয়ে গেছে, সুন্দর পিতামাতার কালো সন্তান প্রভৃতি অনুমান দিয়ে এলিয়েনের প্রমাণ হয় না। এখন বিজ্ঞানের যুগ, এখন পর্যন্ত বিজ্ঞানই জ্ঞানের সবচেয়ে গ্রহণযোগ্য পন্থা। এলিয়েন সম্পর্কে যা করার বিজ্ঞানের সাহায্যেই করতে হবে, যা সিদ্ধান্ত নেবার বিজ্ঞানের সাহায্যেই নিতে হবে। মিথ্যা ও উদ্ভট গল্প ফেঁদে বসার কোনো সুযোগই নেই এখন আর।

Saturday, July 8, 2017

দ্য গ্রেট ফিল্টার – আমরা কেন একা?

মহাবিশ্বে মহাকাশে মহাকাল-মাঝে
আমি মানব একাকী ভ্রমি বিস্ময়ে, ভ্রমি বিস্ময়ে।

                                 – রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর।

ফার্মি প্যারাডক্সে সবাইকে আবারো স্বাগতম। গত দুটি লেখায় (ফার্মি প্যারাডক্স – মহাবিশ্বে বুদ্ধিমান প্রাণের সন্ধানে) এবং (মানুষের চেয়েও বুদ্ধিমান সভ্যতার খোঁজে) আমরা দেখেছি কত বিশাল আমাদের এই বিশ্বব্রহ্মাণ্ড। মহাবিশ্বের এই বিশালতার মাঝে মহাকালের তরীতে চড়তে চড়তে আমরা খুঁজে ফিরেছি একটি পাড় দেখবো বলে, আমাদের মতো একটি জনবসতি দেখবো বলে। কিন্তু বিষ্ময়ে হতবাক হয়ে আবিষ্কার করেছি, এই অন্তরীক্ষে আমরা বড়ই একা। প্রশ্ন হলো তাহলে ওরা কোথায়? আজ আমরা ফার্মির এই প্যারাডক্সের কিছু সমাধান খুঁজার চেষ্টা করবো।
চিত্রঃ এনরিকো ফার্মি।
প্রথমেই বলে রাখি ফার্মির এই প্যারাডক্সটির সমাধান আমরা এখনো পাইনি। তো সমাধান না পেলে কি বসে থাকবো? না, অবশ্যই না। হাতের কাছে তথ্য উপাত্ত, পর্যবেক্ষণ দিয়ে কিছু সম্ভাব্য সমাধান দাঁড় করাবো, তাই না? তো আমরাও তাই করতে গেলাম। আর তখুনি বাঁধল নানা বিপত্তি। নানা মুনির নানা মত! এই যেমন আপনি নিজেই আপনার আশপাশের দশজনকে জিজ্ঞেস করে দেখুন, ভাই বলেন তো মহাবিশ্বে আমরা একা কেন? তারা কী বলে দেখুন না! নিশ্চয়ই কারো সাথে কারো মতের মিল হবে না। বিজ্ঞানীদের অবস্থাও এর থেকে খুব একটা ভালো না। একেকজনের একেক সমাধান।
চিত্রঃ ফার্মি প্যারাডক্স নিয়ে একটি কৌতুক।
তো আমরা কেন একা এই প্রশ্নের সমাধান যেসব বিজ্ঞানী দিয়েছেন, আলোচনার সুবিধার্থে আমরা তাদের দুটা দলে ভাগ করে ফেলি। একদলের যুক্তি, যেহেতু আমরা এখনো দ্বিতীয় কিংবা তৃতীয় শ্রেণির বুদ্ধিমান সভ্যতার কোনোরূপ আলামত পাইনি, এর মানে হলো এদের আসলে কোনো অস্তিত্বই নেই। আরেকদল বলছে, না তারা আছে। তবে আমাদের প্রাযুক্তিক সীমাবদ্ধতার জন্য আমরা এখনো তাদের অস্তিত্ব টের পাইনি।

প্রথম দলঃ আমরা একা, বুদ্ধিমান সভ্যতার কোনো অস্তিত্বই নেই।
প্রথম দলের কথা শুনে একটা গল্প মনে পড়ে গেল। প্রথমবারের মতো সমুদ্র দর্শনে বের হয়েছেন একজন পদার্থবিজ্ঞানী, একজন জীববিজ্ঞানী এবং একজন রসায়নবিদ। পদার্থবিজ্ঞানী সমুদ্র দেখলেন আর ইয়া বড় বড় সব ঢেউ দেখে মোহিত হয়ে গেলেন। ঢেউয়ের ফ্লুইড ডায়নামিক্সের উপর গবেষণা করার কথা চিন্তা করে সাগরে চলে গেলেন। যথারীতি তিনি ডুবে গিয়ে আর ফিরলেন না। জীববিজ্ঞানী বললেন, তিনি সমুদ্রের উদ্ভিদ ও প্রাণীকণার উপর গবেষণা করবেন, কিন্তু তিনিও ওই পদার্থবিজ্ঞানীর মতো সাগরে গিয়ে আর ফিরলেন না। রসায়নবিদ করলেন কি, বহুক্ষণ ধরে বাকি দু’জনের জন্য অপেক্ষা করে শেষে পর্যবেক্ষণ লিখতে বসলেন, ‘পদার্থবিজ্ঞানী এবং জীববিজ্ঞানী উভয়েই সমুদ্রের পানিতে দ্রবণীয়’। তো এই মতের সমর্থকদের অবস্থাটাও হয়েছে ওই রসায়নবিদের মতো। বুদ্ধিমান সভ্যতার কোনো নজির আমাদের চোখে পড়েনি, তার মানে মহাবিশ্বে বুদ্ধিমান প্রাণীরই কোনো অস্তিত্ব নেই, এমনি মত এদের!

না বাপু। তাদের দেখি না বলে, তারা নাই। এসব সস্তা কথাবার্তা বলে পার পাওয়া যাবে না। তারা কেন নাই, সেটার উত্তর দিয়ে যাও। গণিত বলছে আকাশগঙ্গা ছায়াপথেই আমাদের মতো হাজারখানেক বুদ্ধিমান সভ্যতা থাকার কথা, আর সেখানে তোমরা বলছো কেউই আসলে নাই! তাহলে কী হলো তাদের? নিশ্চয়ই এদের ভাগ্যে ঘটে গেছে কিছু একটা। এ দলের বিজ্ঞানীরা এ প্রশ্নের উত্তর দিতে গিয়ে অবতারণা করলেন নতুন একটি ধারণার। তারা সেই ঘটে যাওয়া কিছু একটার নাম দিলেন ‘দ্য গ্রেট ফিল্টার’

এ প্রপঞ্চ অনুসারে, প্রাণসৃষ্টির সূচনা থেকে তৃতীয় শ্রেণির সভ্যতায় পরিণত হওয়ার এই বিশাল যাত্রাপথে কোথাও না কোথাও দাঁড়িয়ে আছে এক অনতিক্রম্য বাঁধার দেয়াল, যা পার করে কোনো সভ্যতা আর এগিয়ে যেতে পারে নি। এই দেয়ালের নামই ‘দ্য গ্রেট ফিল্টার’

কিন্তু প্রশ্ন হলো সভ্যতার অগ্রগতির সুদীর্ঘ এই যাত্রাপথের ঠিক কোথায় আছে এই বাঁধার দেয়াল? আমরা কি পার করে এসেছি এই বাঁধার দেয়াল? নাকি অন্যান্য বুদ্ধিমান সভ্যতার মতো ভবিষ্যতে এই ফিল্টারে এসে নিশ্চিহ্ন হয়ে যেতে হবে আমাদের? ঠিক এই মুহুর্তে মানবজাতির জন্য এর থেকে গুরুত্বপূর্ণ জিজ্ঞাসার আর কিছু আছে বলে মনে হয় না। কারণ এর উপর নির্ভর করছে আমাদের তিনটি বাস্তবতা।
  • আমরা বিরল।
  • আমরাই প্রথম।
  • আমাদের ধ্বংস অনিবার্য।


প্রথম সম্ভাবনাঃ আমরা বিরল, গ্রেট ফিল্টার আমরা পার করে এসেছি।


যদি তাই হয়ে থাকে তবে আমরা নিজেদের বেশ ভাগ্যবানই বলতে পারি। বিবর্তনের ক্রমিক ধাপগুলোর কোনো একটিতে আমরা পার করে এসেছি এই বাঁধার দেয়াল, যেখানে অন্যান্যরা এসে থমকে গিয়েছে। নিচের চিত্রটির দিকে তাকানো যাক। ধরে নেই আমাদের মতো অন্য একটা প্রাণও এই বাঁধার দেয়াল টপকাতে পেরেছে।

এই যদি হয় কাহিনী তবে অনুমান করাই যায় কেন তৃতীয় শ্রেণির একটা বুদ্ধিমান সভ্যতা আমাদের দৃষ্টিগোচর হচ্ছে না। অর্থাৎ কোটি কোটি প্রজাতির বিবর্তনের ইতিহাসে হাতে গোনা দু’একটা সফল প্রজাতির একটি আমরা। আমাদের জন্য এ এক বিশাল আশার বাণী। হাঁটি হাঁটি পা পা করে আমরাই তাহলে একদিন পরিণত হবো তৃতীয় শ্রেণির সভ্যতায়। কিন্তু ব্যাপারটা কেমন জানি হয়ে গেল না, নিজেরাই নিজেদের অনন্য বলে ভাবছি। আজ থেকে ৫০০ বছর আগে আমাদের পূর্বপুরুষরাও কিন্তু নিজেদের খুব অনন্য ভাবতো। তারা ভাবতো পৃথিবী বুঝি এই মহাবিশ্বের কেন্দ্র, আর একে কেন্দ্র করেই ঘুরছে বিশ্বব্রহ্মাণ্ড!
চিত্রঃ তখনকার দিনের পৃথিবীকেন্দ্রিক মহাবিশ্ব।
যাই হোক, বিজ্ঞানে ‘Observation Selection Effect’ নামে একটা কথা আছে। এর মানে হলো যদি কেউ মনে করে সে অনন্য, বিশ্বব্রহ্মাণ্ডে তার মতো আর কেউ নেই, তবে ধরে নিতে হবে সে আসলে একটা বুদ্ধিমান স্বত্বার অংশ। হোক সে বিরল কিংবা আরো দশজনের মতো, তার এই চিন্তন, তার এই ভাবনা অন্য সবার থেকে আলাদা হতে বাধ্য। আর এই ব্যাপারটাই আমাদের ঠেলে দেয় মানুষের অনন্যতার দিকে।

আমরা বিরল, আমরা অনন্য, এটাও তো একটা সম্ভাব্যতা হতে পারে। কিন্তু আমরা যদি সত্যিই অনন্য হয়ে থাকি, ঠিক কবে আমরা এই অনন্যতা লাভ করেছি? অর্থাৎ সভ্যতা পরিক্রমায় কোন পর্যায়ে এসে অন্য সকল সভ্যতা মুখ থুবড়ে পড়লেও আমরা ঠিকই পার হয়ে আসতে পেরেছি? আগামি কোনো এক লেখায় আমরা এর উত্তর খুঁজে বের করার চেষ্টা করবো।

Monday, June 26, 2017

উল্কাপাতের কারণ এবং পৃথিবীর অন্যতম গণবিলুপ্তির কথা।

সৌরজগতে বর্তমানে যে বিশাল সূর্য আর বিশাল গ্রহের উপস্থিতিতি আছে তাদের সবগুলোই ছিল মহাজাগতিক ধূলির বিস্তৃত মেঘ। মহাবিশ্বে ভাসমান হাইড্রোজেন গ্যাস, নক্ষত্রের ধ্বংসাবশেষ ইত্যাদিকে একত্রে বলা হয় মহাজাগতিক ধূলি। কয়েক আলোকবর্ষ ব্যাপী বিস্তৃত এরকম বিশাল ধূলির মেঘ থেকে ঘনীভূত হবার মাধ্যমে ধীরে ধীরে সৌরজগতের সূর্য ও অন্যান্য গ্রহ তৈরি হয়েছে।
ধূলির মেঘ থেকে জন্ম নিয়েছিল সৌরজগৎ।
কিন্তু সৌরজগতের গঠনের সময় কিছু ত্রুটি বিচ্যুতি ছিল। কিছু সীমাবদ্ধতা রয়ে গিয়েছিল। গঠন মুহূর্তে সবকিছু যদি ঠিকঠাক থাকতো তাহলে মঙ্গল গ্রহ ও বৃহস্পতি গ্রহের মাঝে আরেকটি গ্রহ তৈরি হতো। এক বা একাধিক কারণে মঙ্গল ও বৃহস্পতি গ্রহের মাঝে গ্রহটি তৈরি হয়নি। তবে গ্রহ গঠন করতে না পারলেও গ্রহ তৈরির উপাদানগুলো ঠিকই রয়ে গেছে এই দুই গ্রহের কক্ষপথের মাঝখানে। মাঝে থাকা সকল গ্রহাণুকে একত্রে ‘এস্টেরয়েড বেল্ট’ বা ‘গ্রহাণুপুঞ্জ’ নামেও ডাকা হয়। এরা সবগুলো একত্র হয়ে গ্রহ গঠন করার কথা ছিল কিন্তু পারেনি সম্ভবত বৃহস্পতি গ্রহের দানবীয় আকর্ষণের কারণে। গ্রহ হিসেবে বৃহস্পতি অনেক বড় এবং এ কারণে তার আকর্ষণ শক্তিও বেশি। আকর্ষণ শক্তি বেশি হবার ফলে তা এই ক্ষুদ্র বস্তুগুলোর মাঝে এতটাই প্রভাব ফেলেছে যে, এরা নিজেরা নিজেদের আকর্ষণে একত্র হতে পারেনি। ফলে বড় আকার ধারণ করতে পারেনি। আকারে বড় ও ভারী না হলে গ্রহ গঠন করাও সম্ভব নয়।
মঙ্গল ও বৃহস্পতির মাঝে গ্রহাণুর বেল্ট।
সূর্যের পরিবারে যেমন গ্রহাণু বেল্ট আছে, তেমনই শনি গ্রহে উপ-পরিবারেও বলয় বা 'রিং' আছে। শনি গ্রহের বলয় আছে বলেই এটি সৌরজগতের সবচেয়ে ব্যতিক্রম ও আকর্ষণীয় গ্রহ। অনেকের মতেই এটি সবচেয়ে সুন্দর গ্রহ। এই গ্রহের বলয় সৃষ্টি হবার কারণ আর গ্রহাণু বেল্ট তৈরি হবার কারণ প্রায় একই। পৃথিবীর যেমন উপগ্রহ চাঁদ আছে, তেমনই শনি গ্রহেরও অনেকগুলো উপগ্রহ আছে। উপগ্রহ তৈরির সময় কোনো একটি উপগ্রহ কোনো কারণে ঠিকভাবে গঠিত হতে পারেনি, তাই ব্যর্থ ক্ষুদ্র বস্তুগুলো বিক্ষিপ্তভাবে ছড়িয়ে ছিটিয়ে রয়েছে শনির কক্ষপথে। এই বস্তুগুলোই শনির বলয়ের মূল কারণ। এমনিতে শনির মোট উপগ্রহের সংখ্যা ৬২টি, এটি সম্পন্ন হতে পারলে শনির উপগ্রহ হতো ৬৩টি।
শনি গ্রহের বলয়।
গ্রহাণুর এসব টুকরোগুলো সাধারণত ক্ষুদ্র আকৃতির হয়ে থাকে। মাঝে মাঝে কোনো কোনোটি বড়ও হয়ে থাকে। বড় হিসেবে মোটামুটি চোখে লাগে এবং অন্য কোনো গ্রহের সাথে তুলনা করা যায় এমন ধরনের বস্তুগুলোকে বলে প্লানেটিসেমাল (Planetesimal)। এদের মাঝে সবচেয়ে বড়টার আকৃতি প্রায় ১ হাজার কিলোমিটার, এর নাম সেরেস। ১ হাজার কিলোমিটার পরিমাণ ব্যাসের কোনো গোলক আকৃতির বস্তুকে গ্রহের বিশালত্বের সাথে তুলনা করা যায়। কিন্তু এসব দলছুট বস্তুগুলোর বেশিরভাগই গোলক আকৃতির হয় না। এদের আকৃতি হয় অনিয়তাকার। চলার পথে প্রায় সময়ই এক গ্রহাণু আরেক গ্রহাণুর সাথে সংঘর্ষে লিপ্ত হয়। মূলত পরিমাণে বেশি তো, তাই সংঘর্ষ ঘটার হারও বেশি থাকে।

এদের মাঝেই কোনো কোনোটি লাইনচ্যুত হয়ে ছুটে আসে অন্য কোনো গ্রহের পানে। অতীতে পৃথিবীর দিকেও ছুটে এসেছে প্রচুর এবং বর্তমানেও আসে অনেক। এদেরকে আমরা দেখেও থাকি। পৃথিবীর একটি চমৎকার প্রতিরক্ষা ব্যবস্থা হচ্ছে এর বায়ুমণ্ডল। গ্রহাণুগুলো যখন পৃথিবীর বায়ুমণ্ডলকে আঘাত করে তখন তার গতি থাকে অত্যন্ত বেশি। বায়ুতে সাধারণত কোনোকিছুর সংঘর্ষ হয় না, কিন্তু গ্রহাণুগুলোর গতি এত বেশি হয় যে এরা বায়ুর পরমাণুর সাথে সংঘর্ষে লিপ্ত হয়। এমনকি এই সংঘর্ষে জ্বলে পুড়ে ছাই হয়ে যায়। রাতের আকাশে যখন এই ঘটনা ঘটে তখন এই ঘটনাকে দেখতে মনে হয় কোনো তারা বুঝি নিজের অবস্থান থেকে বেরিয়ে ছুটে দৌড় দিয়েছে। আসলে ঐ সময়ে কোনো তারা ছুটে বেরিয়ে যায় না, ঐ সময়ে আসলে গ্রহাণু পুড়ে ছাই হয় পৃথিবীর বায়ুমণ্ডলে। এই ঘটনাকে সাধারণত উল্কাপাত বলে। ইংরেজিতে আরো কাব্যিকভাবে বলে Shooting Star
উল্কাপাতের সময় মনে হয় যেন তারা খসে পড়ছে।
খুব দুর্লভ হলেও মাঝে মাঝে কিছু বড় আকৃতির গ্রহাণু এসে আছড়ে পড়ে। এতটাই বড় যে বায়ুর সংঘর্ষের ফলে ক্ষয়ে গিয়েও নীচে নেমে আসতে আসতে অনেকটা অবশিষ্ট থেকে যায়, পুরোটা ছাই হয়ে শেষ হয়ে যায় না। এরা এসে ভূমিতে আঘাত করে এবং এই আঘাতে ছোট বড় অনেক দুর্ঘটনা ঘটতে পারে। যেমন ১৯৯২ সালের ৯ অক্টোবর বায়ুমণ্ডল ভেদ করে নিউ ইয়র্কের একটি গাড়িতে একটি গ্রহাণু এসে আঘাত করে। ঐ গ্রহাণুটির আকৃতি ছিল বড় ধরনের একটি ইটের সমান। এর চেয়ে বড় আকারের, একটি বড়সড় বাড়ির সমান গ্রহাণু ১৯০৮ সালে এসে আঘাত করে সাইবেরিয়াতে। সাইবেরিয়াতে এর এমন ‘ক্র্যাশ ল্যান্ডিং’-এর ফলে সেখানকার একটি জঙ্গলের বিশাল একটি এলাকা পুড়ে ছাই হয়ে গিয়েছিল।
গ্রহাণুর আঘাতে পুড়ে গিয়েছিল সাইবেরিয়ার বড় একটি জঙ্গল।
বিজ্ঞানীদের কাছে এমন তথ্য প্রমাণ আছে যে, প্রায় ৬৫ মিলিয়ন বছর আগে পৃথিবীতে এত বড় একটি গ্রহাণু আছড়ে পড়েছিল যার কারণে সমস্ত পৃথিবীতে দুর্যোগ নেমে এসেছিল। আমেরিকারই একটি স্থানে এটি আঘাত করেছিল এবং ধারণা করা হয় এর কারণেই পৃথিবী থেকে সকল ডায়নোসর বিলুপ্ত হয়ে যায়। এই গ্রহাণুটির আঘাতের ফলে কী পরিমাণ শক্তি অবমুক্ত হয়েছিল কিংবা কী পরিমাণ ক্ষয় ক্ষতি হয়েছিল তার তুলনা দিতে গেলে বলতে হয়- আজকের যুগে সমস্ত বিশ্বে যতগুলো পারমাণবিক বোমা আছে তার সবগুলো যদি একসাথে বিস্ফোরিত হয় তাহলে যে পরিমাণ শক্তি অবমুক্ত হবে বা ধ্বংস করবে তার থেকেও একশো গুণ বেশি শক্তিশালী ছিল ঐ গ্রহাণুর আঘাত। পৃথিবীতে এখন যে পরিমাণ পারমাণবিক বোমা আছে তা দিয়ে অনায়াসেই সমস্ত পৃথিবী ধ্বংস করে ফেলা যাবে। আর এই শক্তিকে যদি একশো গুণ বাড়িয়ে দেয়া হয় তাহলে তো তার ধ্বংসক্ষমতার কথা কল্পনাও করা যাবে না।

এই গ্রহাণুর আঘাতের ফলে পুরো পৃথিবীতে প্রচণ্ড শক্তিশালী ভূমিকম্পের সৃষ্টি হয়। সুনামি এসে আঘাত করে উপকূলবর্তী এলাকাগুলোতে। ভূমিকম্প সুনামি ও শকওয়েভের ফলে গাছ-পালা বন-জঙ্গল ধ্বংস হয়ে যায়। পাশাপাশি এর ফলে সৃষ্টি হয় খুব ঘন ও পুরো ধূলির আবরণ, যা সূর্যের আলোকে আটকে রাখে। এই বিশৃঙ্খল ধূলির আবরণ স্থায়ী হয় এক বছর পরিমাণ সময়, ফলে এই লম্বা সময়ে সূর্যালোকের অনুপস্থিতিতে পৃথিবীতে নরক নেমে আসে। সূর্যালোক না থাকলে উদ্ভিদেরা নিজেদের খাদ্য তৈরি করতে পারে না, বা বাঁচে না। গাছ গাছালি না থাকলে অন্যান্য প্রাণীরাও খাবার জন্য কিছু পায় না, ফলে বেঁচে থাকা সম্ভব হয় না। যারা মাংসভূক প্রাণী তারা হয়তো অন্য প্রাণী খাবে, কিন্তু অন্য প্রাণীর বেঁচে থাকতেও তো গাছ দরকার। এভাবে মাসখানেকের ভেতরেই সমস্ত পৃথিবী বিরান হয়ে যাবার কথা। এমন পরিস্থিতিতে ঐ সময়ে ডায়নোসরের সকল প্রজাতি বিলুপ্ত হয়ে যাওয়াটাই স্বাভাবিক। ঐ সময়ে ডায়নোসরদের পাশাপাশি অন্যান্য অনেক প্রাণী প্রজাতি বিলুপ্ত হয়ে যায়।
বিজ্ঞানীদের ধারণা উল্কাপাতের ফলেই ধ্বংস হয়ে গিয়েছিল ডায়নোসরদের রাজত্ব।
কিন্তু তারপরেও কিছু কিছু প্রজাতি টিকে গিয়েছিল। হয়তো তাদের ঐ পরিবেশের সাথে খাপ খাইয়ে নেবার মতো ক্ষমতা ছিল, কষ্ট করে হলেও টিকে গেছে। কিংবা তারা হয়তো লম্বা ঘুমের শীতনিদ্রায় ছিল মাটির নীচে বা বরফের নীচে, যার কারণে ভয়াবহতা তাদেরকে খুব বেশি পায়নি। এসব টিকে যাওয়া স্তন্যপায়ী প্রাণী থেকেই আজকের মানুষের উৎপত্তি। ঐ সময়ে যদি কিছু স্তন্যপায়ী প্রাণী টিকে না থাকতো তাহলে মানুষের উৎপত্তির কোনো সম্ভাবনাই থাকতো না।

Saturday, January 28, 2017

সূর্য যেভাবে পৃথিবীর সকল জীবকে বাঁচিয়ে রাখছে...

বেঁচে থাকতে এবং বেঁচে থাকার তাগিদে করা প্রত্যেকটি কাজের পেছনে আছে সূর্যের হাত। দৈনন্দিন জীবনের সব ক্ষেত্রেই প্রত্যক্ষ কিংবা পরোক্ষভাবে কোনো না কোনো এক দিক থেকে সূর্যের উপস্থিতি পাওয়া যাবেই।আমাদের জীবন ধারণ করতে সূর্য কেমন ভূমিকা পালন করছে সে সম্পর্কে সামান্য আলোকপাত করা হবে এখানে।

আমরা এখনো জানি না পৃথিবীর বাইরে মহাবিশ্বের কোনো স্থানে প্রাণের অস্তিত্ব আছে কিনা। তবে এটা জানি, যদি বহির্বিশ্বে প্রাণের অস্তিত্ব থেকে থাকে তাহলে তা অবশ্যই হবে কোনো নক্ষত্রের কাছাকাছি কোনো স্থানে। অন্তত এটা বলা যায়, পৃথিবীতে যে ধরনের প্রাণ আছে সে ধরনের প্রাণ যদি বাইরের বিশ্বে থাকে তাহলে তারা তাদের নক্ষত্রের কাছে থাকবে। কারণ এরকম প্রাণের টিকে থাকতে হলে নিকটবর্তী নক্ষত্র থেকে শক্তি সংগ্রহ করতে হবে। শক্তি ছাড়া কোনো প্রাণ টিকে থাকতে পারে না, শক্তি ছাড়া কোনো সভ্যতার বিকাশ হতে পারে না।

পৃথিবী যেমন সূর্যের কাছাকাছি অবস্থান করছে অনেকটা তেমনই কাছে অবস্থান করবে প্রাণ ধারণকারী সেই গ্রহটি। কাছাকাছি বলতে একদম নিকটে বোঝানো হয়নি, আপেক্ষিকভাবে কাছাকাছি থাকবে অর্থাৎ প্রাণবান্ধব এলাকার মাঝে অবস্থান করবে। খুব কাছেও নয়, যার কারণে অধিক উত্তাপে পানি বাষ্প হয়ে উবে যাবে, আবার খুব দূরেও নয় যার কারণে অধিক শীতলতায় পানি সর্বদা বরফ হয়ে থাকবে। এরকম এলাকাই হচ্ছে প্রাণ ধারণের জন্য উপযুক্ত পরিবেশ।

প্রাণবান্ধব অঞ্চলটি দূরবর্তী কক্ষপথেও থাকতে পারে, আবার কাছের কক্ষপথেও হতে পারে। যেমন R136a1 নামে একটি নক্ষত্র আছে, যা আকারে বেশ বড়। নক্ষত্রের প্রাণ ধারণকারী গ্রহটির অবস্থান হবে এর থেকে দূরে, কারণ বড় বলে তার উত্তাপ বেশি হবে, তাই এমন দূরত্বে থাকতে হবে যেন উত্তাপে প্রাণ কোনো হুমকির মুখে না পড়ে। আবার সূর্যের চেয়েও ছোট কোনো নক্ষত্রের বেলায় প্রাণ ধারণকারী গ্রহ থাকবে নক্ষত্রের একদম কাছে, কারণ এর চেয়ে বেশি দূরে চলে গেলে গ্রহের পরিবেশ হবে অত্যধিক শীতল।
নক্ষত্রের আকার অনুসারে প্রাণ বান্ধব অঞ্চলের অবস্থান (গাঢ় আকাশী রঙ)
এবার গুরুত্বপূর্ণ একটি প্রশ্নে প্রবেশ করা যাক। প্রাণ ধারণকারী গ্রহকে কেন নক্ষত্রের কাছাকাছি অবস্থান করতে হবে? কারণ প্রত্যেক প্রাণেরই টিকে থাকার জন্য শক্তি দরকার। আর শক্তির চমৎকার ও সহজলভ্য উৎস হচ্ছে নক্ষত্র। কোনো প্রকার কর্মযজ্ঞ ও অর্থ বিনিয়োগ না করেই নক্ষত্র বছরের পর বছর ধরে শক্তি সরবরাহ করে যায়। ফ্রি ফ্রি পাওয়া উন্নতমানের সুবিধা, এটার সদ্ব্যবহার করাই বেশি যৌক্তিক।

পৃথিবীর কথা বিবেচনা করি। পৃথিবীতে উদ্ভিদেরা সূর্যালোক থেকে শক্তি সংগ্রহ করে এবং তা সরবরাহ করে সমগ্র জীবজগতকে। উদ্ভিদ সূর্যালোক থেকে নিজের খাদ্য নিজে তৈরি করে। খাদ্য তৈরির জন্য অবশ্য সূর্যের আলোর পাশাপাশি বায়ুমণ্ডলের কার্বন ডাই-অক্সাইডেরও প্রয়োজন হয়। এদের পাশাপাশি মাটির নিচ থেকে পানি ও খনিজেরও দরকার হয়। মূল শক্তিটুকু সূর্যের আলো থেকেই সংগ্রহ করে এবং এর সাহায্যেই স্যুগার বা চিনি তৈরি করে। চিনির শক্তিকে ভেঙেই সকল প্রাণী ও উদ্ভিদেরা চলাফেরা ও নড়াচড়া করে।

পাতার মধ্যে ঘটে যাওয়া প্রক্রিয়াগুলো হাজার হাজার সোলার প্যানেলের সমন্বয়ে তৈরি বিশাল এক ফ্যাক্টরির মতো। বাড়তি উপযোগ পাবার জন্য পাতাগুলো চ্যাপ্টা হয়ে থাকে। চ্যাপ্টা হলে এর ক্ষেত্রফলের পরিমাণ বাড়ে, ক্ষেত্রফল বাড়লে তাতে অধিক পরিমাণ সূর্যালোক আপতিত হয়। ফলে অধিক পরিমাণ খাদ্য উৎপন্ন হয়। বায়ু থেকে কার্বন ডাই-অক্সাইড নিয়ে, ভূগর্ভ থেকে পানি ও খনিজ নিয়ে সূর্যের আলোকে ব্যবহার করে যে রেসিপির প্রক্রিয়া করা হয় তার চূড়ান্ত উৎপাদ হচ্ছে বিভিন্ন ধরনের চিনি। পাতায় উৎপন্ন হওয়া বিভিন্ন ধরনের চিনি বিভিন্ন প্রক্রিয়ায় চলে যায় উদ্ভিদের সমগ্র দেহে। দেহের বিভিন্ন অংশ আবার চিনি থেকে স্টার্চ বা শ্বেতসার তৈরি করে। শক্তি হিসেবে এটি আবার চিনি থেকেও বেশি সুবিধাজনক। উদ্ভিদের দেহের এই শ্বেতসার ও চিনি থেকে তৈরি হওয়া শক্তি ব্যবহার করেই বেঁচে থাকে দুনিয়ার সকল প্রাণী।
সূর্যালোকের শক্তির সাহায্যে বেঁচে থাকে উদ্ভিদ, আর উদ্ভিদের পাতায় উৎপন্ন হওয়া শক্তি ব্যবহার করে বেঁচে থাকে তাবৎ প্রাণিজগৎ।
তৃণভোজী (হার্বিভোরাস) কোনো প্রাণী, যেমন হরিণ বা খরগোশ, যখন কোনো উদ্ভিদকে খায় তখন উদ্ভিদের শক্তিগুলোও তাদের দেহে যায়। এসব প্রাণীরা তাদের দেহ ও পেশি গঠন করতে শক্তিগুলো কাজে লাগায়। দেহের ও পেশির মাঝে শক্তিগুলো দরকার হয় মূলত খাদ্য সংগ্রহ করা, সঙ্গীর সাথে মিলন করা, বিপদে দৌড় দেয়া, অন্যের সাথে যুদ্ধ করা ইত্যাদি কাজে। এই শক্তিগুলোর আদি বা মূল উৎস হচ্ছে সূর্য, যা উদ্ভিদকে মাধ্যম হিসেবে ব্যবহার করে তাদের মাঝে এসেছে।

মাংসভোজী (কার্নিভোরাস) প্রাণীরা আবার তৃণভোজী প্রাণীদেরকে খায়। ফলে এখানেও তৃণভোজী প্রাণীর শক্তি স্থানান্তরিত হয়ে চলে আসছে মাংসভোজী প্রাণীর মাঝে। এই শক্তিও মাংসভোজী প্রাণীর দেহ ও পেশি গঠন করতে কাজে লাগে। তারাও বিবাদে, দৌড়ে, মিলনে, গাছের চরণে শক্তি ব্যয় করে। মাংসভূক প্রাণীটি যদি স্তন্যপায়ী হয়, তাহলে তার কিছুটা শক্তি শিশুর জন্য দুধ উৎপাদন করতেও চলে যায়। এখানেও শক্তির মূল উৎস হিসেবে থাকছে সূর্য। যদিও এই শক্তি বেশ কতগুলো ধাপ পার হয়ে এই অবস্থানে আসে।

অন্যান্য প্রাণী ও পরজীবীরা মাংসভোজী প্রাণীর দেহে বসবাস করে আরো পরোক্ষভাবে শক্তি সংগ্রহ করে। এখানেও পরজীবীর শক্তির মূল উৎস হচ্ছে সূর্য।
জীবন অতিক্রম করে যখন কোনোকিছু মারা যায়, হোক সেটা প্রাণী, উদ্ভিদ, মাংসভোজী, তৃণভোজী কিংবা কোনো পরজীবী- তারা মৃত্যুর পর মাটিতে বিয়োজিত হয়ে যায়। আবার কখনো কখনো আবর্জনাভূক প্রাণীরা এদের দেহাবশেষ খেয়ে ফেলে। এমন ধরনের আবর্জনাভূক প্রাণীর উদাহরণ হচ্ছে গোবরে পোকা। ব্যাকটেরিয়া বা ছত্রাকও মৃতদেহটিকে খেয়ে শেষ করে ফেলতে পারে। ব্যাকটেরিয়া বা ছত্রাকও মূলত এক প্রকার আবর্জনাভূক। এখানেও সেই আগের কথা, শক্তির মূল উৎস হচ্ছে সূর্য। এ কারণেই কম্পোস্টের স্তুপগুলো গরম হয়ে থাকে। কম্পোস্ট মূলত এক ধরনের জৈব সার। গোবর, আবর্জনা, বর্জ্য ইত্যাদি একত্র করে কোনো গর্তে ফেলে ঢেকে রাখলে কয়েকদিন পর যে অবস্থার সৃষ্টি হয় তা-ই কম্পোস্ট। বছরখানেক আগে যে শক্তি উদ্ভিদের পাতায় আটকা পড়েছিল, সেটি এখন টগবগ করছে পচা কম্পোস্টের স্তূপে।
আবর্জনাভুক গুবরে পোকা।
‘মেগাপড’ নামে অস্ট্রেলীয় অঞ্চলের একটি পাখি আছে, এরা এদের ডিমে তা দেয় কম্পোস্ট স্তূপের তাপকে ব্যবহার করে। অন্যসব পাখিদের থেকে এরা একটু ব্যতিক্রম। অন্যান্য পাখিরা ডিমের উপর বসে নিজের গায়ের তাপ ব্যবহার করে ডিমে তা দেয়, কিন্তু অস্ট্রেলীয় মেগাপড পাখি তা দেবার জন্য বিচিত্র কারণে কম্পোস্টের স্তূপকে বেছে নেয়। এর জন্য তারা প্রথমে কম্পোস্টের একটি ক্ষেত্র তৈরি করে নেয় এবং পরে তার উপর ডিম পাড়ে। প্রয়োজন অনুসারে তারা তাপমাত্রার নিয়ন্ত্রণও করে। যখন তাপমাত্রা বাড়ানো দরকার, তখন উপর থেকে আরো কম্পোস্ট এনে যোগ করে, যখন তাপমাত্রা কমিয়ে ফেলা দরকার, তখন কিছু পরিমাণ কম্পোস্ট সরিয়ে নেয়। পাখিগুলো এখানেও কিন্তু আদতে সূর্যের শক্তিকেই ব্যবহার করছে।
অস্ট্রেলীয় মেগাপড।
আবর্জনার স্তূপ থেকে মেগাপডের ডিম সংগ্রহ করছেন একজন ব্যক্তি।
মাঝে মাঝে কিছু গাছ অনেকদিন ধরে টিকে থাকে। এই গাছগুলো বিয়োজিত হয় না বা কেউ এদের খেয়ে ফেলে না। তবে কারো খাদ্য না হলেও এরা স্তরীভূত অঙ্গারে পরিণত হয়। শতাব্দীর পর শতাব্দী ধরে চলমান এই প্রক্রিয়ায় স্তরের উপর স্তর জমা হয়ে বড় স্তর গঠন করে। পশ্চিম আয়ারল্যান্ড সহ অন্যান্য অঞ্চলের মানুষেরা বড় ইটের আকৃতিতে এসব অঙ্গার কেটে কেটে তুলে নিয়ে আসে। ইট আকৃতির অঙ্গারগুলো তারা শীতের দিনে ঘর গরম রাখতে ব্যবহার করে। বরফের দেশগুলোতে ঘর গরম রাখতে ঘরের ভেতরে কিছু না কিছু জ্বালাতে হয়, বাংলাদেশ বা উষ্ণ অঞ্চলীয় দেশগুলোতে এভাবে জ্বালাতে হয় না। ঘরের ভেতর ঠাণ্ডার হাত থেকে বাঁচতে তাপের যে শক্তি ব্যবহার করা হয় তার মূল উৎসও সূর্য, যা হাজার হাজার বছর আগে গাছের পাতায় আটকা পড়েছিল।

এই অঙ্গারগুলো উপযুক্ত পরিবেশ ও প্রভাবকের মধ্যে যদি লক্ষ লক্ষ বছর ধরে থাকে, তাহলে সেগুলো কয়লায় পরিণত হয়। কয়লা অঙ্গারের চেয়ে ভালো মানের জ্বালানী। কয়লা পুড়িয়ে অধিক পরিমাণ উত্তাপ পাওয়া যায়। কয়লার এমন তাপীয় উপযোগিতার কারণেই আঠারো ও ঊনিশ শতকে শিল্প বিপ্লব সংঘটিত হয়েছিল।
তেল, গ্যাস ও কয়লার শক্তি আদতে সূর্যেরই শক্তি।
স্টিল মিলের উত্তপ্ত মেশিনের চালিকাশক্তি, স্টিম ইঞ্জিনের ধোঁয়া উড়ানো প্রবল বেগ, পানি কেটে জাহাজের ছুটে চলা এগুলোর সমস্ত শক্তিই আসলে আসছে সূর্য থেকে। হোক প্রত্যক্ষভাবে কিংবা হোক পরোক্ষভাবে। হতে পারে সেই শক্তি ১ হাজার বছর আগে প্রক্রিয়াজাত হয়েছে কিংবা হতে পারে সেই শক্তির প্রক্রিয়াকাল ৩০০ মিলিয়ন বছর আগের।

শিল্প বিপ্লবের শুরুর দিকে কিছু কিছু ইন্ডাস্ট্রি চলতো স্টিম ইঞ্জিনে। বাদ বাকি অধিকাংশ কটন মিলই চলতো পানি চালিত এক ধরনের যন্ত্রের মাধ্যমে। এই যন্ত্রকে বলা হয় ‘ওয়াটার হুইল’। এই যন্ত্রে চালিত মিল-ফ্যাক্টরিগুলো স্থাপন করা হতো তীব্র স্রোত সম্পন্ন নদীর পাশে। স্রোতের পানির মধ্যে হুইলকে বসানো হতো, এই স্রোতে হুইল ঘুরতো। এই শক্তিকে ব্যবহার করেই চলতো পুরো ফ্যাক্টরি। এখানে ইঞ্জিনের শক্তি কোথা থেকে আসছে? দেখতে সূর্যের সাথে সম্পর্কহীন মনে হলেও আসলে এখানেও শক্তি আসছে মূলত সূর্য থেকেই। কীভাবে?

চাকা বা হুইল ঘুরে পানির স্রোতে, পানির স্রোত তৈরি হয় অভিকর্ষীয় শক্তির প্রভাবে- যার মানে হচ্ছে পানিকে নীচে থেকে উপরে উঠতে হয়। কারণ নীচের পানি উপরে না গেলে উপরে পানির যে সাপ্লাই আছে তা কয়েক দিনেই শেষ হয়ে যাবে। পানিগুলো উপরে উঠতে হলে অবশ্যই বাষ্পে রূপ নিয়ে বায়ুতে ভর করে উঠতে হবে। আর পানি থেকে বাষ্প তৈরি করার কাজটা করে সূর্যের তাপশক্তি। সুতরাং যে ইঞ্জিনই হোক, আর যে শক্তিই হোক- সকল শক্তির উৎসই হচ্ছে মূলত সূর্য।
ওয়াটার হুইলের শক্তিও ঘুরে ফিরে সূর্য থেকেই আসে।
কয়লার মাধ্যমে শিল্প বিপ্লব সাধিত হলে কটন মিলগুলো পানির পরিবর্তে কয়লা ব্যবহার করে ইঞ্জিন চালানো শুরু করেছিল। কয়লাও মূলত সূর্যেরই শক্তি। এখন এদের মাঝে পার্থক্য হচ্ছে, এ প্রকার শক্তি তৈরি হয়েছিল মিলিয়ন বছর আগে, আর আরেক প্রকার শক্তি সঞ্চিত হয়েছিল মাত্র কয়েক সপ্তাহ আগে। পানি বাষ্প হয়ে উপরে উঠে কিছু প্রক্রিয়া সম্পন্ন করে বৃষ্টি আকারে ঝরে পড়ে কিংবা পর্বতের চূড়া থেকে বরফ হতে গলে পড়ে। এ ধরনের শক্তিকে বলা হয় ‘বিভব শক্তি’। নিচে থেকে উপরে উঠানোর ফলে এতে শক্তি জমা হয় বা বিভব জমা হয় বলে একে বিভব শক্তি বলে। বস্তু যত উপরে উঠবে, অভিকর্ষের প্রভাবে ভূমির সাপেক্ষে তার বিভব শক্তি ততই বাড়বে।

পুরো বিশ্ব কীভাবে সূর্যের দ্বারা নিয়ন্ত্রিত হচ্ছে এর মাধ্যমে আমরা তা বুঝতে পারি। উদ্ভিদ যখন আলোর উপস্থিতিতে খাদ্য-চিনি উৎপন্ন করে, তখন সূর্য সাহায্য করছে। যখন কোনো তৃণভোজী বা মাংসভোজী প্রাণী খাদ্য হিসেবে অন্য প্রাণী বা উদ্ভিদকে খাচ্ছে, তখনও শক্তির উৎস হিসেবে থাকছে সূর্য।

আমরা যদি আমাদের আশেপাশে মাটি, পানি, পাতা, লতা, কাঠ, কয়লা, তেল কাগজ, কাপড়, ফার্নিচার, হিটার, ফ্যান ইত্যাদির দিকে তাকাই, তাহলে সবখানেই দেখতে পাবো সূর্যের অবদানের উপস্থিতি। প্রত্যেকটা মিনিটে মিনিটে আমরা সূর্যের অবদানের কাছে ঋণী। পৃথিবীর সকল প্রাণই প্রত্যক্ষ বা পরোক্ষভাবে সূর্যের কাছে ঋণী। সূর্য যে এতকিছু উপহার দিচ্ছে মানুষকে তার অল্প স্বল্পও হয়তো মানুষ জানতো, তার কারণেই সূর্যকে পূজা করতো প্রাগৈতিহাসিক মানুষেরা। অ্যাজটেকরা সূর্যকে খুশি করার জন্য হাজার হাজার মানুষকে
ভয়াবহভাবে বলিদান করেছিল।
সূর্য কোনো দেবতা নয়, তবে দেবতা না হলেও পৃথিবীর মানুষকে যা উপকার করছে তা হাজার দেবতাকেও হার মানায়।
আমরা আজকের মানুষেরা সত্যিই ভাগ্যবান। সূর্যকে আমাদের পূজা করতে হচ্ছে না। বিজ্ঞানের কল্যাণে আজ আমরা জানি সূর্য আসলে একটা মহাজাগতিক বস্তু মাত্র, যা পদার্থবিজ্ঞানের কিছু নিয়ম কানুন মেনে তৈরি হয়েছিল এবং পদার্থবিজ্ঞানেরই কিছু নিয়মের প্রভাবে এক সময় মরে ঠাণ্ডা হয়ে যাবে।